সম্প্রতি, সংশোধনী নাগরিকত্ব আইন চালু করা নিয়ে বারবার সরব হচ্ছিলেন বনগাঁ বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। সিএএ চালু করতে কেন্দ্রীয় সরকার এত দেরি করছে কেন? তা নিয়ে প্রকাশ্যে সরব হয়েছিলেন তিনি। যদিও, ভোটের আগে শান্তনু ঠাকুর তৃণমূলে যোগদান করতে পারেন বলেও জল্পনা শুরু হয়েছিল। এই অবস্থায় উদ্বেগে ছিলেন রাজ্য বিজেপির একাংশ। অবশেষে, আজ মুকুল রায়ের সঙ্গে বৈঠকের পর সেই জল্পনা জল ঢাললেন শান্তনু। 

আরও পড়ুন-খড়দহে শুভেন্দুর হুঁশিয়ারি, রাতেই বদল কাঁথির পুর-প্রশাসক, সরানো হল ভাই সৌমেন্দুকে

শান্তনু ঠাকুরের ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টায় সম্প্রতি তাঁর বাড়িতে গিয়েছিলেন নেতারা। সেখানে তাঁর সঙ্গে কথা বলে ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টা করেছিল বিজেপি। কিন্তু কয়েকদিন পরই আবারও প্রকাশ্যে বিতর্কিত মন্তব্য করতে শুরু করেন তিনি। এই সুযোগ বুঝে তৃণমূলও বনগাঁর সাংসদের সঙ্গে যোগাযোগের শুরু করেন বলেও সূত্রের খবর। খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক তাঁকে দলে ফেরার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এর ফলে বেসুরো শান্তনুকে নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছিল বিজেপির অন্দরে। এদিন তাঁর সঙ্গে দেখা করেন মুকুল রায়।

আরও পড়ুন-হাওড়ায় গুলি করে তৃণমূল কর্মী খুন, শ্যুটআউটের ঘটনায় দুই জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ

শান্তনুর সঙ্গে সাক্ষাতের পর তাঁকে পাশে বসিয়ে মুকুল রায় বলেন, ''সংশোধনী নাগরিকত্ব আইন নিয়ে রাজনীতি করছে তৃণমূল''। অন্যদিকে, ''জল্পনা উড়িয়ে শান্তনু বলেন, সাংসদ হিসেবেই সিএএ নিয়ে কেন্দ্রের কাছে দাবি জানিয়েছি''। রাজনৈতিক মহলের মত মুকুলের সঙ্গে সাক্ষাতের পর দল বদলের জল্পনায় জল ঢেলে দিলেন শান্তনু।