শনিবার শুরু হচ্ছে রাজ্যে প্রথম দফার ভোট।  ২৭ মার্চ শনিবার প্রথম দফায় ৫ টি জেলার ৩০ টি আসনে ভোট গ্রহন হতে চলেছে।  ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটের পর রাজ্য  প্রধান বিরোধী রূপে শক্তিশালী হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির। তবে ৮ দফা ভোট যুদ্ধের লড়াইয়ে টক্কর নিতে প্রস্তুত সিপিএম-কংগ্রেস-আইএসএফ জোট। এদিন যাবতীয় পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর রাখছে নির্বাচন কমিশন।

আরও পড়ুন, শালবনীর পর এবার উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্রকে নিশানা, কুপিয়ে খুনের চেষ্টা, ফের কাঠগোড়ায় তৃণমূল 

 

 


  ২৭ মার্চ শনিবার প্রথম দফায় ৫ টি জেলার ৩০ টি আসনে ভোট গ্রহন হতে চলেছে।  এদিন রাজ্য়ের ৫ জেলা পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পুরুলিয়া ও বাঁকুড়ার মোট ৩০ টি আসনে ভোট গ্রহণ করা হবে। পূর্ব মেদিনীপুরের পটাশপুর, কাঁথি উত্তর, ভগবানপুর,খেজুরি, কাঁথি দক্ষিণ, রামনগর, এগরাতে ভোট হতে চলেছে। পশ্চিম মেদিনীপুরের দাঁতন, কেশিয়াড়ি, খড়গপুর, গড়বেতা, শালবনি, মেদিনীপুর কেন্দ্রে এই দফায় নির্বাচন হবে। ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটের পর রাজ্য  প্রধান বিরোধী রূপে শক্তিশালী হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির। তবে ৮ দফা ভোট যুদ্ধের লড়াইয়ে টক্কর নিতে প্রস্তুত সিপিএম-কংগ্রেস-আইএসএফ জোট। 

 

আরও পড়ুন, রাজ্যে প্রথমদফা ভোটের আগে শালবনিতে উদ্ধার BJP নেতার ঝুলন্ত দেহ, কাঠগড়ায় তৃণমূল 

 


প্রথম দফার নির্বাচনে রাজ্যে বুথে বুথে মোতায়েন করা হয়েছে ৬৫৯ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। ইতিমধ্য়েই রাজ্য়ে ৮০০ কোম্পানি বাহিনী পৌঁছে গিয়েছে। এর মধ্য়ে ৬৫৯ কোম্পানি শনিবারের নির্বাচনে সরক্ষার কাজে মোতায়েন রয়েছে।  উল্লেখ্য, ভোটের মুখে দিনহাটা- শালবনী সহ একের পর এক বিজেপি কর্মী খুনের পর সদ্যই অমিত শাহ জানিয়েছেন, ' আমার পার্টির ১৩০ জনের বেশি কার্যকর্তাকে হত্যা করা হয়েছে। নির্বাচনের একেবারে দোরগড়ায় ৩ জনকে হত্যা করা হয়েছে। আমি বাংলার জনতার কাছে আবেদন জানাতে চাই-বাংলার রাজনৈতিক হিংসা বিজেপি ছাড়া কেউ বন্ধ করতে পারবে না।' এমন পরিস্থিতি সাধারণ মানুষ কী জবাব দেবে তার অপেক্ষায় সারা বাংলা। তাই যাবতীয় পরিস্থিতির দিকে কড়া নজর রাখছে নির্বাচন কমিশন।