মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভায় শুভেন্দু সহ একঝাঁক তৃণমূল নেতা দল বদলের করেছিলেন। তখন থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছে শাসকদলের আরও কয়েকজন নেতা গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে পারেন। এই অবস্থায় দলের বিরুদ্ধে বেসুরো মন্তব্য করেছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায়। শুভেন্দুর সঙ্গে একই ফ্রেমে পোস্টার ফেলেছেন দাদার অনুগামীরা। এই অবস্থায় শাসক দলের দুই মন্ত্রীর নাম শোনা গেল বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁয়ের গলায়। তা নিয়ে নতুন করে জল্পনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে।

আরও পড়ুন-রাতের অন্ধকারে ব্যবসায়ীকে লক্ষ্য করে গুলি, কি কারণে হামলা, রহস্য উদঘাটনের চেষ্টায় পুলিশ

অরূপ রায় কিংবা রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায়। এই দুই জনের মধ্যে যে কোনও একজন খুব শীঘ্রই বিজেপিতে যোগদান করতে পারেন। সৌমিত্র খাঁয়ের এই বিস্ফোরক মন্তব্যেই জল্পনা আরও তীব্র করেছে। কেননা, সমবায়মন্ত্রী অরূপ রায়ের সঙ্গে মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বনিবনা ঠিক নেই বলে আগেই কানোঘুষো শোনা গিয়েছে। সৌমিত্র খাঁ দাবি করেন, অরূপ রায় বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন। কিন্তু রাজীবের সঙ্গে সংঘাতের জেরে কিছুটা পিছিয়ে আসেন অরূপ রায়। তবে হাওড়ার সাত থেকে আটজন বিধায়ক বিজেপিতে যোগদান করতে পারেন বলে দাবি করেছেন সৌমিত্র খাঁ।

আরও পড়ুন-বেকারত্বে দেশের মধ্যে ছয়ে বাংলা, ভোটের মুখে রিপোর্ট বেরোতেই অস্বস্তিতে তৃণমূল

রাজ্যে যতই বিধানসভা ভোট এগিয়ে আসছে। গেরুয়া শিবিরে ততই ভিড় বাড়ছে বেসুরোদের। তৃণমূলের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই মুখ খুলেছেন একাধিক নেতা মন্ত্রী। সেই তালিকায় রয়েছেন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্য়ায়। তাঁর সঙ্গে সমস্যা মেটাতেই একাধিক বৈঠক করেছেন পার্থ চট্টোপাধ্য়ায়। এই পরিস্থিতিতে সৌমিত্র খাঁয়ের মন্তব্য নতুন করে জল্পনায় ঘি ঢেলে দিল বলে মনে করছে রাজনৈতিকমহল।