'অপরাধীদের আশ্রয়' দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। নির্বাচন কমিশনে, নন্দীগ্রামের বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ দায়ের করল তৃণমূল কংগ্রেস। নন্দীগ্রাম কেন্দ্রেই প্রার্থী হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই হাই-প্রোফাইল নির্বাচনী কেন্দ্রের চারটি জায়গায় 'বহিরাগত'রা অবস্থান করছেন, এমনও অভিযোগ করেছে রাজ্যের শাসক দল। এই চার জায়গার মধ্যে একটি জায়গায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এইবারের প্রধান প্রতিপক্ষকে দেখা গিয়েছে। এমনটাই দাবি তৃণমূলের।

২২ মার্চই তৃণমূলের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও'ব্রায়ান চিঠিতে লিখেছেন, "আমরা জানতে পেরেছি, নন্দীগ্রামের বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী এমন অপরাধীদের আশ্রয় দিচ্ছেন, যাঁরা নন্দীগ্রামের বাসিন্দা নন'। এই বিষয়ে স্থানীয় পুলিশ কোনও পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন ডেরেক। এই অবস্থায়, 'শুভেন্দু অধিকারীর ভাড়া করা এবং আশ্রয়প্রাপ্ত বহিরাগত সমাজবিরোধীদের গ্রেফতার করার জন্য' অবিলম্বে হস্তক্ষেপ করে পুলিশকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিক নির্বাচন কমিশন - এমনটাই আবেদন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন - মমতা, আব্বাস না বিজেপি - কোথায় যাবে মুসলিম ভোট, বাংলার নির্বাচনে এবার সবথেকে বড় ধাঁধা

আরও পড়ুন - বিজেপির হাত ধরে বঙ্গে মাথা তুলছে নিম্নবর্ণের হিন্দুত্ব, বাংলা কি শিখবে রাজনীতির নতুন ভাষা

আরও পড়ুন - শেষ বাজারে আচমকা মমতার হিন্দুত্বের তাস, নির্বাচনে কতটা সুবিধা দেবে তৃণমূল কংগ্রেসকে

নন্দীগ্রামে ভোটগ্রহণ ২ এপ্রিল। তার আগে এই হাই প্রোফাইল কেন্দ্র নিয়ে ক্রমেই উত্তেজনার পারদ চড়ছে। দিন কয়েক আগেই মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে হলফনামায় মিথ্যা বলার অভিযোগ করেছিলেন শুভেন্দু। এদিন আবার তাঁকে রামগড়ে জনসভা করতে যাওয়ার পথে আটকায় রাজ্য সরকারের পুলিশ। পুলিশের দাবি ওই জনসভার জন্য প্রয়োজনীয় অনুমোদন নেই বিজেপির। তাই, শুভেন্দুকে রামগড়ে যেতে বারণ করে পুলিশ। তাই লালগড়েই কিছুক্ষণ সমর্থকদের নিয়ে স্লোগান দিতে দেন তিনি, তারপর ফিরে যেতে হয়।