২০২১ সালে তৃণমূলকে 'সাফ' করে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছেন বিজেপি নেতারা। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে একুশে জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল সাংসদের দাবি, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে আড়াইশোটি আসনে জিতে ক্ষমতায় ফিরবে তৃণমূল। 

আরও পড়ুন- 'কাটমানি' ঢাকতে 'ব্ল্য়াকমানি'! বিজেপিকে তোপ মমতার

এবারের লোকসভা নির্বাচনের বিধানসভা কেন্দ্রিক ফল অনুযায়ী তুলনা করলে অভিষেকের এই দাবিকে উচ্চাশা বললে অত্যুক্তি করা হবে না। কারণ বিধানসভার নিরিখে লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী এরাজ্যের ২৯৪টির মধ্যে অন্তত ১২৫টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। বিজেপি যেমন বহু কেন্দ্র অল্প ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে, সেরকমই অনেক বিধানসভা কেন্দ্রেই কয়েক শো ভোটের ব্যবধানে মুখরক্ষা হয়েছে শাসক দলের। এই অবস্থায় কীসের ভিত্তিতে অভিষেক এমন দাবি করলেন, তা নিয়েই রাজনৈতিক মহলে চর্চা শুরু হয়েছে। তার উপর উত্তরবঙ্গ এবং জঙ্গলমহলের জেলাগুলিতে একতরফা ফল করেছে বিজেপি। দু' বছরের মধ্যে সেখানে কোন ম্যাজিকে ঘুরে দাঁড়াবে শাসক দল, সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অবশ্য তার কোনও ব্যাখ্যা দেননি অভিষেক। ফলে, শুধুমাত্র সমর্থকদের চাঙ্গা করতেই অভিষেক এমন দাবি করলেন কি না, তা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। 

আরও পড়ুন- তৃণমূলের মেগা ফ্লপ শো, একুশে জুলাইয়ের সভাকে তীব্র কটাক্ষ দিলীপের

এ দিন শহিদ সমাবেশে ভাষণ দিতে ডায়মন্ডহারবারের সাংসদ এবং যুব তৃণমূল সভাপতি বলেন, 'অনেকে ভেবেছিল এবার ভিড় কম হবে। কিন্তু এ দিনের ভিড় বুঝিয়ে দিয়েছে, তৃণমূল কংগ্রেস লড়াইয়ের জন্য তৈরি।এই দল ঘাসফুলের দল, ঘাস যত কাটবে, তত বাড়বে।' 

আত্মবিশ্বাসী অভিষেক বলেন, '২০১৯ সালের ভোটে সিপিএমের হার্মাদ আর বিজেপির জল্লাদ উন্মাদে পরিণত হয়েছে। ২০২১-এর ভোটে আড়াইশোর বেশি আসনে জিতে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আমাদের নেত্রীর কোনও বিকল্প নেই। মিথ্যে কথা বলে মানুষের মন জয় করা যায় না।'

চ্যালেঞ্জের সুরে অভিষেক বলেন, 'চৌত্রিশ বছরের সিপিএমকে আমরা উৎখাত করেছি। আগামী দিনে বিজেপি এবং সিপিএমকে ঐক্যবদ্ধভাবে এই বাংলা থেকে ঝেঁটিয়ে দেব।'