Asianet News Bangla

"সর্ষের মধ্যেই ভূত লুকিয়ে রয়েছে", ভুয়ো টিকাকাণ্ডে বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি অধীরের

  • ভুয়ো টিকাকাণ্ড নিয়ে রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ অধীরের
  • ভুয়ো টিকাকাণ্ডে বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি অধীরের 
  • সিআইডি বা সিবিআইয়ের প্রতি আস্থা নেই তাঁর
  • রাজ্যের উন্নয়ন নিয়ে তৃণমূল সরকারকে কটাক্ষ করেন তিনি
adhir ranjan chowdhury demands judicial inquiry into fake vaccine scam bmm
Author
Kolkata, First Published Jun 27, 2021, 1:11 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

কসবার ভুয়ো টিকাকাণ্ড নিয়ে ইতিমধ্যেই সরগরম রাজ্য রাজনীতি। আর টিকাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত দেবাঞ্জন দেবের গ্রেফতারের পর একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে পুলিশের হাতে। এমনকী, দেবাঞ্জনের সঙ্গে শাসকদলের যোগ থেকে শুরু করে তৃণমূলের মদতেই তিনি এই কাজ করতে পেরেছেন বলে অভিযোগ করেছে বিজেপি। আর এবার সেই একই সুর শোনা গেল কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরীর গলায়। এই ঘটনায় বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন- কোভিডের কোপে রক্তশূন্য রায়গঞ্জের ব্লাড ব্যাঙ্ক, সাহায্য়ের হাত এগোলেন প্রশাসনিক কর্তারা

মুর্শিদাবাদের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে অধীরবাবু বলেন, "এই ঘটনায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ব্যর্থতা প্রমাণ হয়েছে। ভুয়ো টিকা কলকাতা পুলিশের নাকের ডগায় দেওয়া হয়েছে। অথচ পুলিশ, পুরসভা, স্বাস্থ্যদপ্তর কেউ কিছু জানত না। বাংলার মানুষকে কি গিনিপিগে রূপান্তরিত করা হচ্ছে? টিকা দেওয়ার নাম করে অন্য কিছু দেওয়া হয়েছে। এই দায় কে নেবে। সর্ষের মধ্যেই ভূতের লুকিয়ে থাকার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। মুখ্যমন্ত্রীর উচিত, এই ঘটনার ব্যাখা দেওয়া। সেক্ষেত্রে বিচারপতির মাধ্যমে ঘটনার তদন্ত হোক। সিআইডি বা সিবিআইয়ের প্রতি আস্থা নেই। বিচারবিভাগীয় তদন্ত হলে সব কিছু সামনে আসবে। এই ঘটনা যেন ধামাচাপা দেওয়া না হয়। দোষীদের কঠোর সাজা দিতে হবে।"

 

উপ নির্বাচন প্রসঙ্গে অধীর বলেন,"রাজ্য সরকারের উচিত সুস্থ গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাজ্যে ভোট করা। ভোট না করলে গণতন্ত্র ফেরানো যাবে না। কিন্তু, যেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ মেনে সেই ভোট করা হয়। বহু পুরসভার ভোট বাকি আছে।" এরপর রাজ্যের উন্নয়ন প্রসঙ্গে তৃণমূল সরকারকে কটাক্ষ করেন অধীর। বলেন, "কংগ্রেস আমলে রাজ্যের জেলায় জেলায় উন্নয়ন হয়েছিল। কিন্তু, এখন যে দিন টেন্ডার ডাকা হয়, সে দিনই কাটমানি দেওয়া-নেওয়া হয়। এখন মুর্শিদাবাদের জেলা পরিষদের যা অবস্থা, কখন কে থাকবে, কে থাকবে না, তা নিয়ে সব সময় টানাপড়েন চলছে। ফলে জেলা পরিষদের কাজকর্ম বারোটা বেজেছে। মুর্শিদাবাদ জেলার মানুষ সরকারি পরিষেবা পাচ্ছেন না। জেলাজুড়ে সবরকম সরকারি পরিষেবা বন্ধ।"

আরও পড়ুন- TMC কাউন্সিলরের ছেলের ফ্ল্যাটে মিলল বোমা, ক্ষোভ উগরে গ্রেফতারের দাবিতে কামারহাটিবাসী

এদিকে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এ বছরের মতো বাতিল করা হয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। কিন্তু, পুরভোট করার জন্য ইতিমধ্যেই তোড়জোর শুরু করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। এ নিয়েও রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করেন অধীরবাবু। তাঁর মতে, রাজ্যে যখন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বাতিল করা হয়েছে তাহলে ভোটও এখন করার দরকার নেই। কিন্তু, রাজ্য সরকার পরীক্ষা বন্ধ করলেও তড়িঘড়ি ভোট সেরে ফেলতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios