লকডাউন চলাকালীনও সংক্রমণ ছড়াচ্ছে রাজ্যে। সরকারের বিরুদ্ধে যখন তথ্য গোপন করার অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা, তখন খোদ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়-র 'অতিসক্রিয়তা'য় বিড়ম্বনায় পড়লেন এক যুবক। কলকাতা থেকে কোনওমতে পৌঁছেছেন আসানসোলে। ওই যুবকের পাশে দাঁড়িয়েছেন মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি। বিঁধেছেন বাবুল সু্প্রিয়কেও। 

আরও পড়ুন: কীসের ভিত্তিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা, কেন্দ্রীয় দলের একাধিক প্রশ্নের মুখে নবান্ন

বাড়ি, আসানসোলের কুলটিতে। চাকরি সূত্রে কলকাতায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকেন ওই যুবক। করোনা সন্দেহে বাঙুর হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, হাসপাতালের একটি ভিডিও তুলে আবার পোস্টও করে দিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই ভিডিওটি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায়। বস্তত, ওই ভিডিওটিকে হাতিয়ার করে সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়ান বঙ্গ বিজেপি নেতারাও। এখানেই শেষ নয়। ভিডিওটি রিটুইট করেন আসানসোলেরই সাংসদ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।  ভিডিওটি যিনি তুলেছেন, তাঁর নাম-পরিচয়ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ। আর তাতেই ঘটেছে বিপত্তি। 

আরও পড়ুন: 'কাজে না আসলেই চাকরি থেকে বরখাস্ত', করোনা সঙ্কটে পুর চিকিৎসক-স্বাস্থ্য আধিকারিকদের কড়া বার্তা

আরও পড়ুন: 'অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢুকছে করোনা', শোরগোল পশ্চিম মেদিনীপুরে

জানা গিয়েছে, আসানসোলের ওই যুবকের করোনার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। কিন্তু ততদিনে নাম-পরিচয় জানাজানি হয়ে গিয়েছে। কলকাতায় যে বাড়িতে থাকতেন, সেখানে ঠাঁই হয়নি ওই যুবকের। কোনওমতে আসানসোলে নিজের বাড়িতে ফেরেন তিনি। তবে মানসিকভাবে খুবই ভেঙে পড়েছিলেন। ঘটনাটি জানার পর শুক্রবার বাড়িতে গিয়ে ওই যুবকের সঙ্গে দেখা করেন আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি। পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। টুইটে সাংসদকেও আক্রমণ শানিয়েছেন মেয়র।