যখন-তখন হাসপাতালে ঢোকা যাবে না। খবর সংগ্রহ করার জন্য় কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে সাংবাদিকদের! এমনই নোটিশকে ঘিরে বিতর্ক তুঙ্গে উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরে। শেষপর্যন্ত অবশ্য নোটিশ সরিয়ে ফেলা হয়। স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে যে নির্দেশ আসেনি, সেকথা স্বীকার করে নেন খোদ জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকও।

আরও পড়ুন: চার বছরের শিশুর গলায় আচমকা ধারালো ছুরির কোপ, তাও মাত্র ২০০০ টাকার জন্য

আরওপড়ুন: ফের 'পণের বলি' গৃহবধূ, শ্বশুরবাড়িতে মিলল রক্তাক্ত দেহ

ঘটনাটি ঠিক কী? গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ সংবাদমাধ্যম। খবর সংগ্রহের জন্য দিনভর বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াতে হয় সাংবাদিকদের। বাদ যায় না হাসপাতালও। সোমবার সকালে আচমকাই ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতাল ও সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে একটি নোটিশ ঝুলিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। নোটিশে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, খবর সংগ্রহ বা ছবি তোলার জন্য আর হাসপাতালে ঢুকতে পারবেন না সাংবাদিকরা। যদি হাসপাতালে ঢোকার প্রয়োজন হয়, সেক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের কাছে আগাম অনুমতি নিতে হবে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে শোরগোল পড়ে যায়। স্বাস্থ্য ভবন থেকে কী কোনও নির্দেশ এসেছে? ইসলামপুর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চান জেলার সাংবাদিকরা। যদি নির্দেশ এসে থাকে, তাহলে সেই সংক্রান্ত নথি দেখানোর দাবি তোলেন তাঁরা। এরপরই বিতর্কিত নোটিশ সরিয়ে ফেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

 

উত্তর দিনাজ জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক আর এন প্রধানের বক্তব্য, খবর সংগ্রহের জন্য সাংবাদিক অনুমতি নিয়ে হাসপাতালে ঢুকলে সুবিধা হয়। তবে সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করার কোনও নির্দেশ স্বাস্থ্য ভবন থেকে আসেনি। তাহলে কেন হঠাৎ করে কেন এমন নোটিশ ঝোলানো হল? বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকে বসার আশ্বাস দিয়েছেন  মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক।