পরিকল্পনামাফিক কি এলাকায় অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা চলছে? গৃহ সম্পর্ক অভিযানে গিয়ে ফের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। পাল্টা বিক্ষোভ দেখালেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরাও। ধুন্ধুমারকাণ্ড হুগলির রিষড়ায়।

আরও পড়ুন: মৃতদেহ নিয়ে মিছিল কেন, দিলীপ ঘোষদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা পুলিশের

ঘড়িতে তখন বেলা সাড়ে বারোটা। গৃহসম্পর্ক অভিযানে যোগ দিতে রিষড়া পুর এলাকায় ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের ব্রহ্মানন্দ স্কুল লাগোয়া এলাকায় পৌঁছন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। খবর ছড়িয়ে পড়তে সময় লাগেনি। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। মুহুর্তের মধ্যে এলাকায় ভিড় জমান আশেপাশের লোকজন।  চলে আসেন তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরা। সকলের মিলে সায়ন্তনের গাড়ি বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। ওঠে 'গো ব্যাক' স্লোগানও।  এখানেই শেষ নয়, পাল্টা বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরাও। বিক্ষোভ-পাল্টা বিক্ষোভে তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

আরও পড়ুন: 'দুর্ঘটনা'য় গুরুতর আহত, বাঘরোল শাবককে উদ্ধার করে বাড়ি নিয়ে গেলেন যুবক

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। যাঁকে ঘিরে এত কাণ্ড, সেই বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনায় ক্ষুদ্ধ বঙ্গ বিজেপি-র প্রথমসারির এই নেতা। তাঁর প্রশ্ন, 'অসভ্যতার একটা সীমা আছে। সায়ন্তন বসুকে গো-ব্যাক স্লোগান দিলেই কি তৃণমূল ভোটে জিতে যাবে?' কেন এমনটা হল? তৃণমূলের হুগলি জেলা সভাপতি দিলীপ যাদবের পাল্টা দাবি, 'সায়ন্তন বসু এলাকায় অশান্তি পাকাতে এসেছিলেন। তাই সাধারণ মানুষ ও তৃণমূল কর্মীদের বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। বিশৃঙ্খলকারীদের বরদাস্ত করা হবে না।'