বুনো হাতির মতো তৃণমূলের নেতাদেরও গুলি করে মারতে হবে। এমনই নিদান দিয়ে এবার বিতর্কে জড়়ালেন বীরভূমের বিজেপি-র জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল। প্রকাশ্য সভা থেকে দলের নেতা কর্মীদের উদ্দেশে এমন উস্কানিমূলক মন্তব্য করেন তিনি। প্রসঙ্গত কয়েকদিন আগেই দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও একইভাবে অনুপ্রবেশকারীদের গুলি করে মারার নিদান দিয়ে বিতর্ক তৈরি করেছিলেন। 

এ দিন বীরভূমের সাঁইথিয়ায় নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে মিছিল এবং সভা করে বিজেপি। অভিযোগ, সেই সভা থেকেই গুলি করে মারার হুঁশিয়ারি দেন বিজেপি নেতা। তাঁর অভিযোগ, সাঁইথিয়ায় তৃণমূলের বেশ কয়েকজন নেতা বিজেপি কর্মী, সমর্থকদের উপরে হামলা চালাচ্ছে। 

শ্যামাপদ মণ্ডল বলেন, 'বুনো হাতি ক্ষেপে গিয়ে যখন তাণ্ডব চালায় বা মানুষ খুন করে তখন আমরা বন দফতরে খবর দিই। বন দফতর থেকে এসে প্রথমে হাতিকে ঘুমপাড়ানি গুলি ছুড়ে ঘুম পাড়ানোর চেষ্টা করে। তাতেও হাতি না ঘুমোলে তখন গুলি করে মারা হয়। সেরকমই এই সাঁইথিয়ায় তৃণমূলের তিন চার জন নেতা আছে যারা গুন্ডামি করে, ঘরবাড়ি ভাঙে, আমাদের কার্যকর্তাদের মারধর করে। আমি আমাদের কার্যকর্তাদের বলব, আপনারাও প্রথমে এদের ঘুমপাড়ানি গুলি করুন। তাতেও কাজ না হলে চিরতরে ঘুম পাড়়িয়ে দিন।'

বিজেপি নেতার এই মন্তব্যের কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছে তৃণমূল। রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য বলেন, 'কারা বুনো হাতি আর কারা দিল্লি থেকে এসে তাণ্ডব চালাচ্ছে, মানুষ তা বুঝতে পারছে। আসলে কয়েকদিন আগে গুলি করার কথা বলে তো দিলীপবাবু ফের বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি হয়েছেন। উনিও সেই পথ অনুসরণ করছেন। উস্কানি দিয়ে বাংলাকে অশান্ত করার চেষ্টা করে লাভ নেই।'