আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে? দলের নেতাকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়ার প্রতিবাদে বীরভূমের মল্লারপুরে বনধ পালন করল বিজেপি। কোনও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর নেই। তবে পুলিশের  বিরুদ্ধে জোর করে দোকান খোলানোর অভিযোগ উঠেছে। 

আরও পড়ুন: করোনা আতঙ্কের মাঝেই ডেঙ্গুর প্রকোপ শ্রীরামপুরে, আক্রান্ত মহিলা থানার ওসি

ঘটনার সূত্রপাত ১৬ সেপ্টেম্বর। সেদিন সকালে স্থানীয় দক্ষিণগ্রাম পঞ্চায়েতের টাওসিয়া গ্রামে বাংলার আবাস যোজনার বাড়ির জিও ট্যাগ করতে গিয়েছিলেন অভিজিৎ গড়াই নামে পঞ্চায়েতের এক অস্থায়ী কর্মী। কাজ সেরে ফেরার পথে স্থানীয় বিজেপি নেতা সুশান্ত দে ও তাঁর অনুগামী পথ আটকে ওই পঞ্চায়েত কর্মীকে বেধড়ক মারধর করেন বলে অভিযোগ। গালিগালাজ করা হয় অশ্রাব্য ভাষায়। মল্লারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আক্রান্ত। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ময়ুরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের বিজেপি-এর মণ্ডল সভাপতি সুশান্ত দে-কে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতকে তিনদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত। এরইমধ্যে রবিবার আবার ওই বিজেপিকে অন্য একটি মামলায় আদালতে তুলে ফের নিজেদের হেফাজতে নেয় পুলিশ।

আরও পড়ুন: বাড়িতে চড়াও হয়ে 'মারধর' শ্বশুরবাড়ির লোকেদের, অপমানে আত্মহত্যা যুবকের

কেন এমনটা করা হল? ঘটনার প্রতিবাদে মল্লারপুরে মঙ্গলবার ২৪ ঘণ্টা বনধের ডাক দেয় বিজেপি। বনধের জেরে এলাকার অধিকাংশ দোকানপাঠই ছিল। তবে পঞ্চায়েত অফিস ও ব্যাঙ্ক কাজকর্ম চলেছে স্বাভাবিক নিয়মেই। বেলার দিকে মিছিল বের করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। নেতৃত্বে ছিলেন দলের বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডল, জেলার সাধারণ সম্পাদক অতনু চট্টোপাধ্যায়,  রাজ্য কমিটির সদস্য অর্জুন সাহা-সহ আরও অনেকে।