নদীর চরে থাকে তারা। কখনও যে স্নান করতে নেমেছিল, টের পাননি কেউই। নদীতে তলিয়ে গেল দুই শিশু। বৃহস্পতিবার সকালে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে হুগলির বলাগড়ে।

আরও পড়ুন: নিরাপত্তারক্ষীর গলায় ছুরি ঠেকিয়ে এটিএম লুটের চেষ্টা, আতঙ্ক ছড়াল ইসলামপুরে

একজনের নাম রঞ্জিত বিশ্বাস, আর এক রূপসা বিশ্বাস। বাড়ি, বলাগড়ের ক্ষত্রিয় নগর এলাকায়। বৃহস্পতিবার সকালে হুগলি নদীতে স্নান করতে নেমে ঘটল বিপত্তি। প্রবল স্রোতে তলিয়ে গেল দু'জনই। জানা গিয়েছে, স্থানীয় বাসিন্দাদের প্রথমে জাল ফেলে নদীতে তল্লাশি চালান। কিন্তু তাতেও কোনও লাভ হয়নি। খবর দেওয়া হয় বলাগড় থানায়। ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ ও বিপর্যয় মোকাবিলা দলের সদস্যরা। নদীতে ডুবুরি নামিয়ে খোঁজ চলে রঞ্জিত ও রূপসার। কিন্তু তাদের আর সন্ধান পাওয়া যায়নি। ঘটনায় শোকের ছায়া নেমেছে এলাকায়।

আরও পড়ুন: লকডাউনে মিষ্টির দোকানকে ছাড়,পয়লা বৈশাখে দই খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেন ছ'জন

এদিকে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে বলাগড়ের ক্ষত্রিয়নগর এলাকায় যান স্থানীয় বিধায়ক অসীম মাজি ও যুব তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সভাপতি শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়।  স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, নদীর চরে কয়েক ঘর মৎস্যজীবী থাকেন। যে দু'জন শিশু তলিয়ে গিয়েছে, তারা মৎস্যজীবীদেরই সন্তান। নিখোঁজদের এক আত্মীয়ের দাবি, সকালে হুগলি নদীর ওপারে মাছ ধরা হচ্ছিল। স্থানীয় এক যুবক সাঁতার কেটে ওপারে যান। তাই দেখে রঞ্জিত ও রূপসা ওপারে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং তলিয়ে যায়।