'অচেনা প্রাণী'কে দেখে তাড়া করেছিল একদল কুকুর। পালাতে গিয়ে খালে পড়ে গুরুতর জখম একটি চিতল হরিণ। দুটি পা ভেঙেছে, কুকুরের কামড়ে শরীরও ক্ষতবিক্ষত। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ার বেলিয়াতোড়ের কুসুমার জঙ্গলে। 

আরও পড়ুন: অবলা প্রাণীদের উপর 'প্রতিশোধ', খাবারে বিষ মিশিয়ে 'খুন' পথকুকুরদের

জানা গিয়েছে, বুধবার বিকেলে জঙ্গল থেকে বেরিয়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়ে ওই চিতল হরিণ। এলাকার কয়েকটি কুকুর তাড়া করে হরিণটিকে। লাফ দিয়ে পালাতে গিয়ে হরিণটি পড়ে যায় খালে। কিন্তু তাতেও রেহাই মেলেনি। জানা দিয়েছে, খালে নেমে হরিণটিকে আক্রমণ করে কুকুরের দল। শরীরের একাধিক জায়গায় কামড় বসিয়ে দেয় সারমেয়রা। প্রাণে বাঁচতে এরপর খাল থেকে সোজা পুকুরে ঝাঁপ দেয় হরিণটি। এদিকে ততক্ষণে ঘটনাটি নজরে পড়ে গিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দারা। গুরুতর জখম অবস্থায় হরিণটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় বনদপ্তরের বেলিয়াতোড় রেঞ্জ অফিসে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা করেন বনকর্মীরা। বৃহস্পতিবার সকালে হরিণটি আনা হয় বাঁকুড়া জেলার মুখ্য প্রাণী হাসপাতালে।

আরও পড়ুন: সরকারি হাসপাতালে ঢুকে মহিলার 'শ্লীলতাহানি', চাঞ্চল্য বাঁকুড়ায়

কিন্তু হরিণটি জঙ্গল থেকে বেরিয়ে এল কেন? চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন বন দপ্তরের আধিকারিকরা। বসন্তের শুরুতে শুকনো পাতায় ভরে ওঠে জঙ্গল। সেই পাতাতে অনেক সময় আগুন লাগিয়ে দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। চোরাশিকারীদের দৌরাত্ম্যও তো কম নয়। প্রাণ বাঁচাতেই কি হরিণটি ঢুকে পড়েছিল লোকালয়ে? প্রাথমিক তদন্তে তেমনটাই মনে করা হচ্ছে। কয়েক মাস আগে রহস্যজনকভাবে তিনটি হরিণ মারা যায় বাঁকুড়ার মুকুটমণিপুরে। স্থানীয় ডিয়ার পার্ক থেকে উদ্ধার হয় তাদের ক্ষতবিক্ষত। ঘটনায় বনদপ্তরের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছিলেন পশুপ্রেমীরা।