জিএসটি, নোটবাতিল, তিন তালাক আইনের মতোই এনআরসি-ও হবে। আর তাতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তিতেও কিছু আটকাবে না। শুক্রবার উত্তর চব্বিশ পরগণার বারাসতে এসে এমনই বার্তা দিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 

বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ইতিমধ্যেই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, এনআরসি চালু হলে বাংলা থেকে দু' কোটি অনুপ্রবেশকারীকে তাড়ানো হবে। পাল্টা বৃহস্পতিবার এনআরসি-র প্রতিবাদে উত্তর কলকাতার সিঁথির মোড় থেকে শ্যামবাজার পর্যন্ত মিছিল করেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়ে দেন, কোনও অবস্থাতেই বাংলায় এনআরসি চালু হতে দেওয়া হবে না। একজন মানুষকেও বাংলা থেকে তাড়ানো হবে না বলে হঁশিয়ারি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। 

আরও পড়ুন- অর্থনীতির ধস থেকে নজর ঘোরাতেই এনআরসি, মন্তব্য মমতার

আরও পড়ুন- রাজ্যে এক কোটি মুসলিম অনুপ্রবেশকারী,দাবি দিলীপের

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জবাব দিয়ে দিলীপবাবু বলেন, 'উনি বেঁচে থাকতে জিএসটি- নোটবাতিল হয়েছে, তিন তালাক বিলও পাশ হয়েছে, ৩৭০ ধারা বাতিল হয়েছে, এবার এনআরসি-ও হবে।' বাংলায় এনআরসি চালু করে একজনকেও তাড়াতে দেওয়া হবে না বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে দাবি করেছেন, '২০১৯-এ তো বলেছিলেন বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ হবে। কিন্তু কী হয়েছে সবাই দেখেছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের খালি আওয়াজ আছে, আর কিছু নেই।'

তবে একা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয়, বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে আগে এনআরসি চালু করার যে দাবি কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী তুলেছিলেন, তার জবাব দিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, 'অসমে আগে পরীক্ষা- নিরীক্ষা হয়ে যাক। তার পর আস্তে আস্তে সবার ইচ্ছেই আমরা পূরণ করব।'