আশিস মণ্ডল, বীরভূম-চুরির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে নাবালককে আটক করেছিল পুলিশ। ওই দিন রাতে পুলিশ লকআপের ভিতর অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছিল নাবালকের। সেই ঘটনায় অবশেষে পদক্ষেপ করল বীরভূম জেলা পুলিশ। নাবালক মৃত্যুর ঘটনায় দুই পুলিশ অফিসারকে ক্লোজ করা হল। একই সঙ্গে ক্লোজ করা হয়েছে ওইদিন থানায় কর্তব্যরত অবস্থায় থাকা এক সিভিক ভলান্টিয়ারকেও।

আরও পড়ুন-শহরতলির বাইরে অন্যান্য জায়গায় ট্রেন চালুর অনুমতি, রেলকে অনুমতি দিল রাজ্য সরকার

গত ৩০ অক্টোবর চুরির ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শুভ মেহেন নামে এক নাবালককে আটক করেছিল বীরভূমের মল্লারপুর থানার পুলিশ। ওই এলাকার রেলপাড় সংলগ্ন খালাসিপাড়া থেকে নাবালককে আটক করা হয়। ওই দিন রাতেই থানার লকআপে অস্বাভাবিক মৃত্যু হয় নাবালকের। পুলিশের দাবি করেছিল, লকআপের বাথরুমে গলায় বিদ্যুতের তার জড়িয়ে আত্মঘাতী হয় ওই নাবালক। অন্যদিকে, পরিবারের পালটা দাবি, শুভকে তিন দিন ধরে থানায় আটকে রেখে মারধর করে পুলিশ। তার জেরে লকআপে মৃত্যু হয়। ঘটনার প্রতিবাদে উত্তাল হয়েছিল মল্লারপুর। নাবালকের মৃত্যুর তদন্তে সিবিআই দাবি করে বিজেপি। অবরোধ করা হয়েছিল জাতীয় সড়ক। এই নিয়ে হাইকোর্টে মামলাও হয়েছিল।

আরও পড়ুন-বনদফতর-SSB-র যৌথ অভিযানে সাফল্য়, কোচবিহার থেকে উদ্ধার প্যাঙ্গোলিন

এরপরই, নড়েচড়ে বসে জেলা প্রশাসন। শুক্রবার মল্লারপুর থানার এসআই ধ্রুবজ্যোতি দত্ত এবং এএসআই স্বপন মাল সহ এক সিভিক ভলান্টিয়ারকে ক্লোজ করে জেলা পুলিশ। তদন্তের স্বার্থে দুই পুলিশ অফিসারকে সরানো হয়েছে বলে জাানন জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং। যদিও, বিজেপির দাবি, ঘটনার নজর ঘোরাতে নিচুতলার পুলিশকর্মীদের বলির পাঁঠা করা হল।