হাতি তাড়াতে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। হুলা পার্টির এক সদস্যের দেহাংশ মিলল জঙ্গলে। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে এ রাজ্যের সীমান্ত লাগোয়া ঝাড়খণ্ডের ঘাটশিলায়। আতঙ্কিত স্থানীয় বাসিন্দারা।

ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার। ভরসন্ধেবেলায় তিনটি দাঁতাল হাতি ঢুকে পড়ে ঘাটশিলা রেঞ্জের মুড়াবান্দি গ্রামে। বনদপ্তরে খবর দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। হাতি তাড়াতে গ্রামে হাজির হন হুলা পার্টির সদস্যরা। কিন্তু হাতিগুলিকে যখন জঙ্গলে পাঠানোর চেষ্টা চলছে, তখনই ঘটে বিপত্তি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হাতির সামনে পড়ে যান হুলা পার্টির দুই সদস্য। একজন কোনওমতে রক্ষা পেলেও, আর একজনের খোঁজ মিলছিল না। শনিবার সকালে জঙ্গলের বিভিন্ন প্রান্তে পিকলু সবর নামে ওই ব্যক্তির দেহাংশ পড়ে থাকতে দেখেন গ্রামবাসীরা। দেহাংশগুলি উদ্ধার করেছেন বনদপ্তরের কর্মীরা। কিন্তু কীভাবে ঘটল এমন মর্মান্তিক ঘটনা? বনদপ্তরের অনুমান, স্রেফ খুন করেই ক্ষান্ত হয়নি, পিকলু-এর দেহ নিয়ে রীতিমতো ছেঁড়াছেঁড়া করেছে হাতির দল! দেহটি টুকরো টুকরো করে ফেলা দেওয়া হয়েছে জঙ্গলের বিভিন্ন প্রান্তে। ঘটনার বীভৎসতায় শিউরে উঠেছেন সকলেই।

আরও পড়ুন: যখন তখন শিংয়ের গুঁতো, ষাঁড় ধরবে কে, আতঙ্ক দুর্গাপুরে

আরও পড়ুন: বাসন্তীতে ফের তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ দলের যুবনেতা

উল্লেখ্য, দিন কয়েক আগে ঝাড়খণ্ড থেকে একটি হাতি ঢুকে পড়েছিল ঝাড়গ্রামের জামবনি-র টুলিবর গ্রামে। কিন্তু এলাকায় কোনও ক্ষয়ক্ষতি করেনি সে, বরং দুলকি চালে গ্রামের মেঠো পথ ধরে হাতিটি জঙ্গলের দিকে চলে যাওয়ার চেষ্টা করছিল বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু হাতিটি গ্রামবাসীরা নানাভাবে উত্যক্ত করেন বলে অভিযোগ। ঘটনার ভিডিও আবার ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। বনদপ্তরের আধিকারিকরা জানিয়েছিলেন, আক্রান্ত হাতিটি সম্ভবত কারও পোষা ছিল। তাই শত অত্যাচারে প্রত্যাঘাত করেনি সে। বরাতজোরে রক্ষা পান গ্রামবাসীরা।