চব্বিশ ঘণ্টা পেরিয়ে যাওয়ার পরেও কুমারগঞ্জের ধর্ষণের পর খুন হওয়া নির্যাতিতার পরিবারের কোনও খোঁজ নেই বলে অভিযোগ উঠল। এ দিন নির্যাতিতার বাড়িতে যান জাতীয় এসসি কমিশন-এর সদস্য যোগেন্দ্র পাসোয়ান। তাঁর কাছেও একই অভিযোগ করেন নির্যাতিতার আত্মীয়রা। 

নির্যাতিতার আত্নীয়দের অভিযোগ, শনিবার কুমারগঞ্জ থানা থেকে শনিবার সকালে এসে নিহত তরুণীর বাবা, মা এবং দাদাকে ক্ষতিপূরণের চেক দেওয়ার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এর পরে দুপুরে জেলা প্রশাসনের তরফে তাঁদের হাতে ক্ষতিপূরণের চেক তুলে দেওয়ার পর থেকেই নির্যাতিতার বাবা, মা এবং দাদার কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। শনিবার বিজেপি-র প্রতিনিধি দলে গিয়েও নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে পারেনি। এ নিয়ে বিক্ষোভও দেখান বিজেপি নেতারা। 

এ দিন নির্যাতিতার বাড়িতে যান জাতীয় এসসি কমিশনের সদস্য যোগেন্দ্র পাসোয়ান। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার সহ জেলা পুলিশ, প্রশাসনের কর্তারা। 

আরও পড়ুন- চাদর কিনতে গিয়ে নিখোঁজ, কুমারগঞ্জে নৃশংস পরিণতি মহিলার

আরও পড়ুন- মিছিলে ধর্ষিতার নাম থাকায় 'অসভ্য় বিজেপি', তাপসী মালিকের নাম প্রকাশ করেছিলেন কে

যোগেন্দ্র পাসোয়ানও এ দিন নির্যাতিতার পরিবারের সদস্যদের দেখা না পেয়ে অন্যান্য আত্মীয়দের সঙ্গে কথা বলেন। তাঁর কাছেও নির্যাতিতার বাবা, মা এবং দাদার নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার বিষয়টি তোলেন আত্মীয়রা। 

এসসি কমিশনের প্রতিনিধি সঙ্গে সঙ্গেই বিষয়টি নিয়ে জেলার পুলিশ সুপার দেবর্ষি রায়ের কাছে প্রশ্ন করেন। কিন্তু পুলিশ সুপারও দাবি করেন, ওই পরিবারের খোঁজ তিনি জানেন না। পুলিশ সুপারের জবাবে সন্তুষ্ট না হয়ে এসসি কমিশনের প্রতিনিধি দ্রুত নির্যাতিতার পরিবারকে খুঁজে বের করে তাঁদের বাড়ি পৌঁছে দিয়ে যথাযথ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি গণধর্ষণ এবং পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় এক সপ্তাহের মধ্যে চার্জশিট পেশ করার কথাও বলেন যোগেন্দ্র পাসোয়ান। পাশাপাশি তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, তদন্তে কোনওরকম গাফিলতি দেখলে রাজ্যে স্বরাষ্ট্র এবং মুখ সচিব সহ জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারকে দিল্লিতে কমিশনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ডেকে পাঠানো হবে। 

এর পাশাপাশি রেশন, প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার ঘর যাতে নির্যাতিতার পরিবার পায়. বিডিও-কে সেই নির্দেশ দেন এসসি কমিশনের সদস্য।