আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: গর্ভগৃহে প্রবেশ করা যাবে না, বাইরে থেকে বিগ্রহকে দর্শন করতে হবে পূর্ণ্যার্থীদের। আনলকে পর্বে এবার খুলছে তারাপীঠ মন্দিরও। রথের দিন অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে ভক্তরা ঢুকতে পারবেন মন্দিরে। তবে এবার তারাপীঠ থেকে আর রথ বেরোবে না।

আরও পড়ুন: টাকা-পয়সা নিয়ে বিবাদ কাড়ল প্রাণ, হুগলিতে খুন হয়ে গেলেন যৌনকর্মী

দেখতে দেখতে তিন মাস হয়ে গেল। করোনা সতর্কতায় ১৯ মার্চ থেকে বন্ধ তারাপীঠ মন্দির। ভক্তদের মন্দিরে প্রবেশের ক্ষেত্রে জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। তবে নিত্যপুজোয় অবশ্য ছেদ পড়েনি। আনলকে পর্বে মন্দির খুলব কিনা, তা নিয়ে সংশয় ছিলই। কারণ, মুখ্যমন্ত্রী যখন পয়লা জুন থেকে এ রাজ্যে মন্দির-মসজিদ-গির্জা খোলার কথা জানিয়েছিলেন, তখন বৈঠকে বসেন তারাপীঠের মন্দির কমিটি সদস্যরা। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, মন্দির যেমন বন্ধ ছিল, তেমনি থাকবে। অচলাবস্থা অব্যাহত থাকে দ্বিতীয় দফায় বৈঠকেও। শেষপর্যন্ত মন্দির খোলার সিদ্ধান্ত হল রবিবারের বৈঠকে।

আরও পড়ুন: অন্ডালে ভয়াবহ ধসে মাটির গর্ভে চলে গেল বাড়ি, নিখোঁজ এক মহিলা

তারাপীঠ মন্দির কমিটি সভাপতি তারাময় মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, 'সমস্ত রকম রীতি মেনে পুজো করা হবে। তিনটি স্যানিটাইজার ট্যানেল বসানো হয়েছে। পুন্যার্থীরা তার ভিতর দিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করবেন। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে তাঁদের দাঁড়াতে হবে। আপাতত সেবাইত ছাড়া কাউকে গর্ভগৃহে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।' মন্দিরের সেবাইত, কমিটির প্রাক্তন সভাপতি শ্যামাচরণ মুখোপাধ্যায় বলেন, 'প্রতি বছর মা তারাকে রথে বসিয়ে তারাপীঠ প্রদক্ষিণ করানো হয়। কিন্তু এবার করোনা ভাইরাসের কথা মাথায় রেখে মায়ের রথ ঘুরবে না। শুধুমাত্র রথে মায়ের পুজো হবে। বন্ধ থাকছে ভান্ডারাও।  চাইলে পুজোর পর শ্মশানে গিয়ে ভান্ডারা খাওয়াতে পারেন ভক্তেরা।'