দলের সভামঞ্চ থেকে রীতিমতো আঙুল উঁচিয়ে অ্যাম্বুল্যান্সকে ঘুরপথে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। ঘটনার ভিডিও আবার ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অ্যাম্বুল্যান্সকাণ্ডে এবার বিজেপি-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হল কৃষ্ণনগরের কোতুয়ালি থানায়। শুধু তাই নয়, ওই অ্যাম্বুলেন্সে এক প্রসূতি ছিলেন বলেও জানা গিয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত সোমবার। সেদিন কৃষ্ণনগর রাজবাড়ি থেকে প্রশাসনিক ভবন পর্যন্ত নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে মিছিল বের করেছিলেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। মিছিল শেষে প্রশাসনিক ভবনে সামনে জনসভায় যখন বক্তব্য রাখছিলেন দিলীপ ঘোষ, তখন সভাস্থলের কাছাকাছি চলে আসে একটি অ্যাম্বুল্যান্স। কিন্তু বিজেপি-এর জনসভা ভিড় যথেষ্ট, যানজটের কারণে অ্যাম্বুল্যান্সটি রাস্তা দিয়ে এগনোর সুযোগই পাচ্ছিল না। মঞ্চ থেকে ঘটনাটি নজরে পড়ে বিজেপি-এর রাজ্য সভাপতি তথা মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষের। কিন্তু রাস্তা খালি করার ব্যবস্থা করেননি তিনি, উল্টে অ্যাম্বুল্যান্সটিকেই ঘুরপথে যাওয়ার নির্দেশ দেন। চালককে বলেন, 'রাস্তায় অনেক লোক বসে রয়েছে। ডিস্টার্ব হয়ে যাবে। ঘুরিয়ে নিয়ে যান।' ঘটনার ভিডিও চোখের নিমেষে ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। নিন্দার ঝড় ওঠে রাজনৈতিক মহলে।

আরও পড়ুন: জেএনইউ-র মতো হামলা হতে পারে বিশ্বভারতীতে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল ভিডিও

খবর পেয়ে নড়েচড়ে বসে পুলিশও।  খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, ওই অ্যাম্বুলেন্স করে সেদিন এক প্রসূতিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল কৃষ্ণনগর সদর হাসপাতালে। তার নাম মঞ্জিরা বিবি। তিনি নদিয়ার ধুবুলিয়ার বাসিন্দা। এরপরই দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয় কৃষ্ণনগরের কোতুয়ালি থানায়।  এদিকে আবার অ্যাম্বুল্যান্সকাণ্ডে পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়ে আবার মেজাজ হারান দিলীপ ঘোষ।  বিজেপি-এর সভা বানচাল করতে ফাঁকা অ্যাম্বুল্যান্স পাঠানোর পাল্টা অভিযোগ তোলেন তিনি।