করোনা আতঙ্কের মাঝে চলছিল তন্ত্রসাধনা। সিদ্ধিলাভের আশায় শেষপর্যন্ত নিজের ছেলেকেই খুন করে কবর দেওয়ার চেষ্টা করল এক ব্যক্তি! বরাতজোরে রক্ষা পেয়েছে বছর দশেকের এক বালক। ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জে। অভিযুক্ত বাবা ও তান্ত্রিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন: বিজেপি কার্যালয় থেকে উদ্ধার চালের বস্তা,রেশন ডিলারকে শোকজ

কালিয়াগঞ্জের টুঙ্গইল বিলপাড়া এলাকার বাসিন্দা গলিচাঁদ বর্মন। বাড়ি লাগোয়া মন্দিরে চলত তন্ত্রসাধনা। ভরসন্ধেবেলায় সেই মন্দিরের সামনেই গর্ত খোঁড়া হচ্ছিল। অন্তত তেমনই দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এক বালককে নামিয়ে বারবার ঠিক করে নেওয়া হচ্ছিল গর্তটির মাপ। দূর থেকে দেখেই বোঝা যাচ্ছিল, সে অত্যন্ত ভয় পেয়েছে। কী ব্যাপার? প্রতিবেশীরা হাজির হন অভিযুক্ত তান্ত্রিকের বাড়িতে। গলিচাঁদ, ওই বালক ও তার বাবা-কে জিজ্ঞাসাবাদ করতে শুরু করেন তাঁরা। কিন্তু কোনও প্রশ্নেরই সদুত্তর মেলেনি বলে অভিযোগ। খবর দেওয়া হয় কালিয়াগঞ্জ থানায়। তান্ত্রিক গলচাঁদ বর্মন ও আর অভিযুক্ত দিলীপ সরকারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন: রাজ্য়ের শর্তে বাস নামালে লোকসান, ক্ষতির আশঙ্কায় উল্টো পথে বেসরকারি বাস মালিকরা

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, তন্ত্রসাধনায় সিদ্ধিলাভের জন্য নিজের ছেলেকে খুন করে মন্দির চত্বরে কবর দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল দিলীপ। এই কাজে মদত ছিল অভিযুক্ত তান্ত্রিকেরও। ঘটনার পর থেকে রীতিমতো আতঙ্কে রয়েছেন সকলেই। লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে কালিয়াগঞ্জ থানায়। তদন্তে আশ্বাস দিয়েছেন উত্তর দিনাজপুরের পুলিশ সুপার সুমিত কুমার।