বাবা প্রয়াত, গুরুতর অসুস্থ মা। গুনিনের নিদান মেনে পরিবারকে বাঁচাতে প্রতিবেশী মহিলাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাল  যুবক! রেহাই পায়নি আক্রান্তের মেয়েও। কুসংস্কারের আঁধার নামল মু্র্শিদাবাদে।

ঘটনাটি ঠিক কী? বছর দুয়েক আগে মুর্শিদাবাদের লালগোলার বলরামপুর গ্রামে জমি কিনে বাড়ি করেছে পেশায় রাজমিস্ত্রি বাবু শেখ। পাশের জমিতেই বাড়ি তাসকুরা বিবি-এর। স্বামী ও মেয়েকে নিয়ে থাকেন তিনি। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দুই পরিবারের মধ্যে একেবারেই বনিবনা ছিল না। ছোটখাটো ব্যাপার নিয়ে রোজই অশান্তি লেগে থাকত। এরইমধ্যে মাস ছয়েক আগে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান বাবু শেখের বাবা জাকির শেখ। গত কয়েক দিন ধরে ভুগছেন জাকিরের স্ত্রীও। আর তাতেই দুই প্রতিবেশীর মধ্যে বিবাদ আরও বাড়ে। বাবু শেখের ধারণা হয়, তাসকুরা বিবির তুকতুাকের কারণেই এসব হয়েছে। অন্তত তেমনই দাবি করেছেন এলাকার মানুষ।

আরও পড়ুন: বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে যুবককে 'খুন', মৃতের দুই বন্ধুকে গণধোলাই স্থানীয়দের

আরও পড়ুন: বৌভাতে নিমন্ত্রিতদের চারা গাছ বিলি, পরিবেশ রক্ষার বার্তা নব দম্পতির

জানা গিয়েছে, স্থানীয় এক গুনিনের সঙ্গে যোগাযোগ করে বাবু। সেই গুনিনই নাকি নিদান দেন, প্রতিবেশী তাসকুরা বিবির তুকতাকের কারণেই তার মা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন এবং তিনিও মারা যাবেন! এরপর বুধবার সকালে বাড়িতে ঢুকে ওই গৃহবধূকে, বাবু শেখ ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারি কোপাতে শুরু করে বলে অভিযোগ। মা-কে যখন বাঁচাতে যায়, তখন আক্রান্তের মেয়ে-কে নিগ্রহ করা হয় বলে জানা গিয়েছে। চিৎকার শুনে আসেন আশেপাশের লোকেরা। গুরুতর আহত অবস্থায় তাসকরা বিবিকে প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় কৃষ্ণপুর গ্রামীণ হাসপাতালে। কিন্তু শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে স্থানান্তরিত করা হয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।  এদিকে এই ঘটনার পর পরিস্থিতি বেগতিক বুঝে ভাই ও বোনকে সঙ্গে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে অভিযুক্ত বাবু শেখ। কিন্তু তাদের হাতেনাতে ধরে ফেলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। রীতিমতো দড়ি দিয়ে বেঁধে শুরু হয় গণধোলাই। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। মূল অভিযুক্ত বাবু শেখকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  তবে তার ভাই পালিয়েছে।