ঘন কুয়াশার জের। রাস্তায় দৃশ্যমানতা কম থাকায় মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। ভোর রাতে রাস্তায় মোড়ের পাশে একটি বাড়ির দেওয়ালে ধাক্কা মারে বাইক। দুর্ঘটনার জেরে দেওয়াল চাপা পড়ে যায় বাইকে থাকা তিনজন। বেলা গড়াতেই টের পান স্থানীয় বাসিন্দারা। দুর্ঘটনাগ্রস্তদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে, তাঁদের মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। অন্যদিকে, ভাড়া গাড়িতে করে ডাক্তার দেখিয়ে ফেরার পথে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল আরও দুজনের। পৃথক জায়গায় দুটি দুর্ঘটনা ঘটেছে মুর্শিদাবাদে।

আরও পড়ুন-কেন্দ্রীয় বাজেটেও রবি ঠাকুর, নির্মলা সীতারমণের মুখে 'ফেইথ ইজ দ্য বার্ড

\

মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি এলাকায় রবিবার ভোররাতে বাইকে করে ফিরছিলেন একই পরিবারের তিনজন। এলাকার কাবিলপুর থেকে কবিগান শুনে ফিরছিল পাশের গ্রামে। রাস্তায় বাইকে করে ফেরার পথে একটি মোড়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ধাক্কা মারে বাড়ির দেওয়ালে। দুর্ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে দেওয়াল ধসে চাপা পড়ে যায় তিনজন। পরিবারের লোকেরা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাঁদের ফোন বেজে যায়। এই অবস্থায় বেলা গড়াতেই বিষয়টি স্থানীয় বাসিন্দাদের চোখে পড়ে। তড়িঘড়ি তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। মৃতরা সীতারাম মণ্ডল, শঙ্কর মণ্ডল, অপূর্ব মণ্ডল। প্রত্যেকের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। মৃতরা সকলেই একই পরিবারের সদস্য, মুম্বইতে রাজমিস্ত্রীর কাজ করতেন। কিছুদিন আগে বাড়ি ফিরেছিলেন তাঁরা।

আরও পড়ুন-বাজেটে কী কী পেল পশ্চিমবঙ্গ, জানালেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামণ

অন্যদিকে, আরও একটি দুর্ঘটনা ঘটে বহরমপুর এলাকায়। একটি অটো ভাড়া করে বহমপুর থেকে ডাক্তার দেখিয়ে হরিহরপাড়া এলাকায় ফিরছিলেন উত্তম হালদার ও মইদুল ইসলাম শেখ। জাতীয় সড়কের উপর কাঁটাবাগানের কাছে অটোতে ধাক্কা মারে একটি ট্রাক। পিছনে ধাক্কা মারলে অটো উল্টে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়     দুই জনের। গুরুতর জখম আরও একজনে কলকাতার হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।