হিংসা ছড়ানোর অভিযোগে পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া বা পিএফআই-কে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে চিঠি পাঠিয়েছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। আর এ রাজ্যে সংগঠনের পোস্টার-ব্যানারে কিনা জ্বলজ্বল করছেন খোদ তৃণমূল সাংসদের নাম!  টুইট করে ঘটনাটি প্রকাশ্যে এনেছেন বঙ্গ বিজেপি-এর কেন্দ্রীয় সহ-পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন। বেজায় অস্বস্তিতে পড়েছে তৃণমূল নেতৃত্ব। পিএফআই-এর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মুর্শিদাবাদের সাংসদ আবু তাহের।

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রী কি পাকিস্তানের দূত, শিলিগুড়ি থেকে নয়া আক্রমণ মমতার

স্রেফ হিংসা ছড়ানোই নয়, এ দেশে নিষিদ্ধ সংগঠন সিমি-এর সদস্যরাও যোগ দিচ্ছেন পিএফআই-তে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে চিঠি দিয়ে তেমনই অভিযোগ করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। আগামী পাঁচ জানুয়ারি বহরমপুরের ভাকুড়ী এলাকায় 'ন্যায়ের আওয়াজ' নামে একটি সম্মেলনের আয়োজন করেছে পিএফআই। সেই সম্মেলনেরই প্রধান বক্তা খোদ মুর্শিদাবাদের ত়ৃণমূল সাংসদ আবু তাহের! সংগঠনের পোস্টার-ব্যানারে তেমনই দাবি করা হয়েছে। ব্য়ানারের ছবি-সহ রাজ্য বিজেপি-এর কেন্দ্রীয় সহ-পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন টুইট করেছেন, ‘PFI মুর্শিদাবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছে। সেখানে তৃণমূল সাংসদকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে।’শোরগোল পড়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

কী বলছেন মুর্শিদাবাদের তৃণমূল সাংসদ আবু তাহের? পিএফআই-র বিরুদ্ধে অনুমতি না নিয়েই প্রচারপত্রে তাঁর নাম ছাপানোর অভিযোগ তুলেছেন সাংসদ। হুঁশিয়ারি দিয়েছে আইনি পদক্ষেপেরও।  তবে শুধু সাংসদই নন, ওই সম্মেলনে মুর্শিদাবাদেরই হরিহরপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক নিয়ামত শেখও আমন্ত্রিত ছিলেন। দল নিষেধ করায় ওই অনুষ্ঠানে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। এদিকে এই টানাপোড়েনের মাঝেই আবার পুলিশও ওই সম্মেলনের অনুমতি প্রত্যাহার করে নিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।