শাজাহান আলি, পশ্চিম মেদিনীপুর-মন্ত্রিত্ব থেকে ইস্তফা দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু এখনও তিনি তৃণমূল বিধায়ক পদে রয়েছেন। রাজ্য রাজনীতিতে তাঁকে নিয়ে জল্পনার মধ্যেই আজ পশ্চিম মেদিনীপুরের সভায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। শুভেন্দুকে নিয়ে দোলাচলের মধ্যেই মেদিনীপুরে তৃণমূল নেত্রীর সভা ঘিরে চড়ছে রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ।

আরও পড়ুন-'আমাদের অনুপ্রেরণা দাদা', কলকাতার পর এবার হাওড়া জুড়ে রাজীবের পোস্টার

মেদিনীপুর কলেজ মাঠে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের সভাস্থলে ভিড় করেছেন হাজার হাজার তৃণমূলকর্মীরা। করোনা আবহে নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা মাথায় রেখে তৃণমূল নেত্রীর সভাস্থল তৈরি হয়েছে। এই অবস্থায় সভাস্থল থেকে তৃণমূলকর্মীদের মধ্যে অন্য ছবি ধরা পড়ল। প্রায় শখানেক পুরনো তৃণমূল কর্মীর সভাস্থল থেকে জোরদার স্লোগান দিতে শুরু করলেন। দিদি জিন্দাবাদ বলে স্লোগান দিচ্ছেন তাঁরা। কিন্তু তাঁদের মূল দাবি পুরনো তৃণমূলকর্মীদের তাঁদের মর্যাদা ফিরিয়ে দিতে হবে। কেননা, মেদিনীপুর শহরে বহু তৃণমূল কর্মী বর্তমানে তাঁদের মর্যাদা হারিয়েছেন বলে দাবি করেছেন। পুরনোদের দূরে ঠেলে নতুনদের জায়গা করে দেওয়া হচ্ছে বলে দাবি স্লোগান দেওয়া তৃণমূলকর্মীদের অনেকেই। মুখ্যমন্ত্রীর সভাস্থল থেকে পুরনো তৃণমূলকর্মীদের স্লোগান ঘিরে কিছুটা অস্বস্তিতে পড়েছেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন-আজ মমতার সভা মেদিনীপুরে, শুভেন্দুকে নিয়ে কী বার্তা, অপেক্ষায় সারা বাংলা

তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের মেদিনীপুরের সভায় শুভেন্দু অধিকারীর উপস্থিতি নিয়ে জল্পনা তৈরি হয় রাজ্য রাজনীতিতে। তিনিও একজন পুরনো তৃণমূল নেতা। কিন্তু একুশের ভোটের আগে তৃণমূল দল থেকে দূরত্ব বজায় রেখেছেন শুভেন্দু। শেষ খবর পাওয়া অনুয়ায়ী, মুখ্যমন্ত্রীর ওই সভায় অধিকারী পরিবারের কেউ উপস্থিত থাকছেন বলেও জানা গিয়েছে। একদিকে শুভেন্দুর অনুপস্থিতি আর অন্যদিকে, পুরনো তৃণমূল কর্মীদের মর্যাদারল দাবি। এই দোলাচলের মধ্যে মেদিনীপুরের সভা থেকে মমতা কী বার্তা দেন। এখন সেই দিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিকমহল।