বিপদ থেকে রক্ষা করে যেন দেবী, তিনিই বিপদতারিণী। এবার আর স্রেফ পরিবারের মঙ্গল কামনায় নয়, করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তির চেয়ে বিপদতারিণীর পুজো করলেন সকলেই।

আরও পড়ুন: মমতার শুবুদ্ধি হোক, 'মা বিপদতারিণীর' কাছে প্রার্থনা অগ্নিমিত্রার

কথায় বলে, বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। রথযাত্রার আষাঢে মাসে বিপদতারিণীর ব্রত পালন করলেন বাঙালি বধূরা। প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী, বর্ষার সময়ে দেবী দুর্গা বা কালীই বিপদতারিণী রূপে পুজো নেন। এ রাজ্যের কোথা কোথাও আবার বিপদতারিণীর আলাদা মূর্তি তৈরি করেও পুজোর রেওয়াজ আছে। তবে বিপদে রক্ষারত্রী এই দেবীকে দুর্গারই  একটি রূপ বলে মনে করা হয়। পরিবার মঙ্গল কামনায় যিনি এই ব্রত রাখেন, তাঁকে পুজো শেষ না হওয়া পর্যন্ত নির্জলা উপবাসে থাকতে হয়।

আরও পড়ুন: এটা বিবৃতির সময় নয়, ত্রাণ দুর্নীতি নিয়ে মমতাকে খোঁচা রাজ্যপালের

করোনা আতঙ্কে এবার সবই উলটপালট হয়ে গিয়েছে। কিন্তু বিপদতারণী পুজোর দিনে মন্দিরে চেনা ছবিটার কিন্তু বদল হয়নি। বরং মারণ ভাইরাস থেকে মুক্তির আশায় এলাকায় কালী কিংবা দুর্গা মন্দিরে মহিলাদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতোই। সকলেরই একটাই প্রার্থনা, 'করোনা ভাইরাস মুক্ত করো পৃথিবী'।