গোপনে দ্বিতীয়বার বিয়ে করেছিলেন তিনি, কিন্তু শেষরক্ষা আর হল কই! যাঁকে বিয়ে করেছিলেন, তিনিই সটান থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করলেন। বিজেপি-এর মণ্ডল সভাপতিকে গ্রেফতার করল পুলিশ। বাঁকুড়ার শালতোড়ার ঘটনা। 

আরও পড়ুন: পুরভোটের আগে জোর ধাক্কা, পুরনো দলেই ফিরলেন বিজেপি-এর কাউন্সিলর

সম্প্রতি বাঁকুড়া জেলায় বিজেপি-এর সংগঠনে রদবদল ঘটেছে। শালতোড়া মণ্ডলের সভাপতির দায়িত্ব পেয়েছেন অরুণ মণ্ডল। অভিযোগ, বছর দেড়েক আগে গোপনে দুর্গাপুরের এক তরুণীকে বিয়ে করেন তিনি এবং সেখানেই বাড়ি ভাড়া দিয়ে দ্বিতীয় স্ত্রীর থাকারও ব্যবস্থা করে দেন। জানা গিয়েছে, হাতে শাঁখা-পলা পরে সোমবার ওই তরুণী হাজির হন শালতোড়া, অভিযুক্ত বিজেপি নেতার বাড়িতে। অরুণ মণ্ডল ও তাঁর পরিবারের লোকেরা ওই তরুণীকে বেধড়ক মারধর করেন বলে অভিযোগ। শেষপর্যন্ত শালতোড়া থানার পুলিশ গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে। ঘটনাটি জানাজানি হতেই শোরগোল পড়ে যায় এলাকায়। পুলিশ সূত্রে খবর, বিজেপি-এর মণ্ডল সভাপতি অরুণ মণ্ডলের বিরুদ্ধে গার্হস্থ্য হিংসা ও প্রতারণার অভিযোগে শালতোড়া থানায় এফআইআর করেছেন তাঁর 'দ্বিতীয় স্ত্রী'। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে সোমবার রাতে শালতোড়ার বাড়ি থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন: গ্রামের পাশে পার্কে ঝুলে বিশাল অজগর, আতঙ্কে হুলুস্থুল এলাকা

যদিও নিজের বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগই ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন ধৃত বিজেপি নেতা অরুণ মণ্ডল। আর দলের বাঁকুড়া জেলা সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্রের বক্তব্য, গোটা ঘটনাটিই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।  তবে দলীয়ভাবে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।