হোয়াটসঅ্য়াপের ডিপিতে মহিলাদের ছবি। এরপর, বিভিন্ন ব্যক্তিদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করে চলত চ্যাট। ছবি আদানপ্রদানের মাধ্যমে ঘনিষ্ঠতা বাড়াত জালিয়াতরা। পরে নগ্ন ছবি দিয়ে তথ্য আদানপ্রদান করে দুষ্কৃতীদের ফাঁদে পা দিত অনেকে। তারপর, ব্ল্য়াকমেল করে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিত জালিয়াতরা। পশ্চিমবঙ্গে নয়, রাজস্থানে বসেই অনলাইন জালিয়াতি চক্র চালাত দুষ্কৃতীরা। সেই বড়সড় জালিয়াতি চক্রের পর্দাফাঁস করল  মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর জেলা পুলিশ।

আরও পড়ুন-জোড়া আন্দোলনে উত্তপ্ত মেদিনীপুর প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ অফিস, খোল-কীর্তনে অভিনব আন্দোলন

জঙ্গিপুর জেলা পুলিশের বিভিন্ন থানায় অনলাইন জালিয়াতি চক্রের বহু অভিযোগ পেয়েছিল তদন্তকারীরা। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত নামে জঙ্গিপুর জেলা পুলিশ। দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গিপুর, ফরাক্কা, রঘুনাথগঞ্জ, সাগরদিঘি সহ বিভিন্ন জায়গায় অনলাইন জালিয়াতি চক্র দিনে দিনে বাড়ছিল। সেই সব অভিযোগের তদন্তের জন্য রাজস্থানে অভিযান চালায় জঙ্গিপুর জেলা পুলিশ। ওই ভিন রাজ্য থেকে তিন জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতরা হল সাবির শেখ, রাজপাল সিং, চিরঞ্জিত সিংহ। ধৃতদের মঙ্গলবার জঙ্গিপুর আদালতে তোলা হলে ১৩ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক।

আরও পড়ুন-অগ্নিমূল্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম, মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে নজরদারি প্রশাসনের

জালিয়াতি চক্রের তিন পাণ্ডার কাছ থেকে অত্য়াধুনিক ডিভাইস, ল্য়াপটপ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এছাড়াও, ৭৫টি হোয়াটসঅ্য়াপ নম্বর ও১৮ টি ব্য়াঙ্ক অ্য়াকাউন্টের হদিশ পায় সাইবার সেলের আধিকারিকরা। সেই সূত্র ধরেই খোঁজ মেলে রাজস্থান যোগের। পুলিশ সূত্রে খবর, ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্য়াপে বন্ধুত্ব পাতিয়ে জালিয়াতি চক্র চলত। মহিলাদের নগ্ন ছবি দিয়ে ব্ল্যাকমেল করত জালিয়াতরা। মোটা টাকার দাবি করে হুমকি দেওয়া হত অনেককে। টাকার অঙ্ক ছিল এক লক্ষের টাকারও বেশি। রাজস্থান থেকে তিন জালিয়াতকে গ্রেফতারের পর রঘুনাথগঞ্জে নিয়ে আসে পুলিশ। এই ঘটনায় বড়সড় জালিয়াতি চক্রের পর্দাফাঁস করল পুলিশ।