পরিস্থিতি কি আদৌ বদলাবে? পোলবাকাণ্ড থেকে শিক্ষা নিয়ে এবার বেআইনি পুলকারের দৌরাত্ম্য ঠেকাতে উদ্যোগ নিল পুলিশ। চুঁচুড়ায় যে বেসরকারি স্কুলের ছাত্র ছিল ঋষভ সিং, মঙ্গলবার সেই স্কুলের কর্তৃপক্ষ, পুলকার মালিক ও চালকদের সঙ্গে বৈঠক করলেন চন্দনগর কমিশনারেটের এসিপি(ট্রাফিক) রিয়াজ আহমেদ খান। মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হলেই পুলিশি অভিযানও শুরু হবে বলে জানা গিয়েছে। 

নিউক্লিয়ার ফ্যামিলিতে হয়তো স্বামী-স্ত্রী দু'জনেই চাকরি করেন। সন্তানকে রোজ স্কুলে পৌঁছবে দেবে কে! পুলকারের উপর ভরসা করতে হয় অভিভাবকদের। কারণ, স্কুল বাসের চল এখন আর নেই বললেই চলে। কিন্তু পুলকারগুলি রক্ষণাবেক্ষণ ঠিক মতো হয় তো? পোলবায় ভয়াবহ দুর্ঘটনায় দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র ঋষভ সিং-এর মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়েছে সকলেই।

আরও পড়ুন: এবার নজরে বেআইনি পোস্ত চাষ, চন্দ্রকোনায় ব্য়াপক তল্লাশি শুরু

অধিকাংশ পড়ুয়াই পুলকারে যাতায়াত করে। কিন্তু হলে কী হবে!গাড়ির মালিকদের সঙ্গে স্কুল কর্তৃপক্ষের সম্পর্ক নেই। নিজের গাড়ি থাকলে তো কথাই নেই। চাইলে গাড়ি ভাড়া নিয়েও পুলকারের ব্যবসা করা যায়। মুনাফা ছাড়া তো আর ব্যবসা হয় না! অতএব পড়ুয়াদের নিরাপত্তার সঙ্গে আপস করতেও দ্বিধা করেননি পুলকার মালিকরা। সূত্রের খবর, যে গাড়িগুলি পুলকার হিসেবে ব্যবহার করা হয়, সেগুলির কর্মাশিয়াল লাইন্সেস বা বাণিজ্যিক ছাড়পত্র নেই। পুরনো গাড়িগুলির সেভাবে রক্ষণাবেক্ষণও করা হয় না। বেশিরভাগ পুলকারই রাস্তায় চলাচলের অযোগ্য। তার সঙ্গে যোগ হয় গাড়ির বেপরোয়া গতি। ফলে প্রায়শই দুর্ঘটনাও ঘটে। মঙ্গলবার  চুঁচুড়ায় বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষ ও পুলকার সঙ্গে বৈঠকে চন্দনগর কমিশনারেটের এসিপি(ট্রাফিক) রিয়াজ আহমেদ খান সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, এবার থেকে পুলকারের ক্ষেত্রে আর কোনওরকম বেনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না। কর্মাশিয়াল লাইন্সেস নিয়ে নির্দিষ্ট গতিতে চালাতে হবে পুলকার। 

আরও পড়ুন: ভিন ধর্মে বিয়ে মানেনি পরিবার, মিড ডে মিলে খুদেদের ভুরিভোজ নব দম্পতির

উল্লেখ্য, গত ১৪ ফ্রেরুয়ারি সকালে পড়ুয়াদের নিয়ে শ্রীরামপুর থেকে চুঁচুঁড়া যাওয়ার পথে দুর্ঘটনা কবলে পড়ে একটি পুলকার। পোলবার কামদেবপুরে দিল্লি রোডে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুলকারটি উল্টে যায় নয়ানজুলিতে। দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয় দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র ঋষভ সিং। শনিবার মারা গিয়েছে সে।