কলকাতার একটি পাঁচতারা হোটেল থেকে অপহৃত হওয়া এক রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ীকে ফিল্মি কায়দায় উদ্ধার করল দক্ষিণ ২৪ পরগণার সোনারপুর থানার পুলিশ। অপহৃত ব্যবসায়ীর নাম অভিষেক মুখোপাধ্যায়। শনিবার রাতে হুগলির ডানকুনি এলাকা থেকে ঐ ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় জড়িতদের মধ্যে দু' জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

সোনারপুর থানা এলাকার অভিজাত একটি আবাসনের বাসিন্দা অভিষেক। গত ১২ সেপ্টেম্বর বাণিজ্যিক বিষয়ে কথা বলতে গিয়েছিলেন ধর্মতলার একটি পাঁচতারা হোটেলে। ওই হোটেলে তাঁর সঙ্গে বৈঠকে বসেন অভিষেক বল্লভ, পুরুষোত্তম ভার্মা, পার্থ ও বিশ্বজিৎ নামে বেশ কয়েকজন ব্যক্তি। এছাড়াও অভি এবং রঞ্জন নামে দু' জন বাউন্সারও ছিল সেখানে। পার্থ বন্দ্যোপাধ্যায় নামে নিজের পূর্ব পরিচিত এক ব্যক্তির সূত্র ধরেই বাকিদের সঙ্গে আলাপ হয়েছিল অভিষেকের। বৈঠকের পরে অন্যত্র গিয়ে ফের মিটিংয়ের অছিলায় গাড়িতে তোলা হয় অভিষেককে।  এর পরেই তাঁকে অপহরণ করা হয়।  চোখ বন্ধ করা তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় ডানলপের একটি জায়গায়। সেখানে একটি কাগজে অভিষেকের কাছ থেকে ৭০ লক্ষ টাকা পাওনা আছে বলে লিখিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। 

গত ১৩ তারিখ অভিষেককে গাড়িতে করে ডায়মন্ডহারবার এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। রাস্তায় নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁকে ব্যাপক মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ। ডায়মন্ডহারবারে নিয়ে গিয়ে ওই ব্যবসায়ীকে দিয়ে তাঁর বাড়িতে ফোন করিয়ে  মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। এই ফোন পাওয়ার পরই গত ১৩ তারিখ সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন অভিষেকের মা। 

অভিযোগ পাওয়ার পর থেকেই তৎপর হয় পুলিশ। অপহরণকারীদের নির্দেশ মতো শনিবার সন্ধ্যায় টাকা নিয়ে অভিষেকের মা এবং মাসি একটি গাড়িতে করে ডানকুনির কাছে যান। অন্য দু'টি গাড়ি থেকে তাঁদের উপরে লক্ষ্য রাখছিল সাদা পোশাকের পুলিশ। অভিষেকের মা ও মাসির থেকে  টাকা নিতে এলে দুই অপহরণকারীকে হাতেনাতে ধরে ফেলে পুলিশ। তাদের নাম প্রিয়াংশু পোল্লে ও জগন্নাথ গুপ্তা।  উদ্ধার করা হয় অপহৃত ব্যবসায়ীকে। এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত অভিষেক বল্লভ- সহ মোট ৫ জন এখনও পলাতক। তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। 

ধৃতদের বিরুদ্ধে ৩৬৪এ ধারায় মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।  এ বিষয়ে বারুইপুর পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইন্দ্রজিৎ বসু বলেন, 'গত ১৩ তারিখ আমরা একটা অপহরণের অভিযোগ পাই। সেই অভিযোগ পেয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়। এখনও পর্যন্ত আমরা দু' জন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করতে পেরেছি। বাকিদের খোঁজে ও তল্লাশি চলছে। উদ্ধার করা হয়েছে অপহৃতকেও।'