আশিষ মণ্ডল, বীরভূম:  ঠিক যেন সিনেমা! পাক্কা ত্রিশ ঘণ্টার পর ধরা পড়লেন প্রাক্তন এক সেনাকর্মী ও তার পরিবারের সদস্যরা। জখম হলেন বেশ কয়েকজন পুলিশকর্মী। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের নলহাটিতে।

আরও পড়ুন: চুরি করতে এসে ধরা পড়ল চোর, ন্যাড়া করে তুলে দেওয়া হল পুলিশের হাতে

ঘটনার সূত্রপাত রবিবার সকালে।  নলহাটির খাঁপুর গ্রামে সপরিবারে থাকেন সৌকত আলি। একসময়ে সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন তিনি। স্থানীয় সূত্রে খবর, জমিজমা নিয়ে প্রতিবেশী আজিজুর রহমানের সঙ্গে বিবাদ চলছিল সৌকতের। আজিজুরের স্ত্রীর আবার স্থানীয় বানিওড় পঞ্চায়েতের সদস্যা। পুরনো বিবাদের জেরে রবিবার সকালে আজিজুরের উপর সৌকত হামলা চালায় বলে অভিযোগ। লোহার শাবল দিয়ে মেরে আক্রান্তের হাত-পা ভেঙে দেওয়া হয়। এমনকী, মারধর করা হয় তাঁর স্ত্রী নাজিরাকেও। অন্তত তেমনই দাবি গ্রামবাসীদের। আশঙ্কাজনক অবস্থায় আজিজুর ভর্তি বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।

আরও পড়ুন: দেশের দুই রাজ্যে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনায় জারি লাল সতর্কতা, দক্ষিণবঙ্গে নিম্নচাপের অভাবে দুর্বল বর্ষা

এদিকে এই ঘটনার পর অভিযুক্ত সৌকত আলিকে গ্রেফতার করতে গিয়ে বাধা মুখে পড়েন পুলিশকর্মীরা। পরিবারের লোকেদেরা পুলিশকে বাধা দেয় বলে অভিযোগ। সোমবার সকালে বিভিন্ন থানার পুলিশ একযোগে অভিযানে নামে। ঘিরে ফেলা হয় গোটা গ্রাম। কিন্তু তাতেও সমস্যা মেটেনি। যখন অভিযুক্তদের বাড়ি দিকে এগোতে শুরু করেন, তখন পুলিশকর্মীদের লক্ষ্য করে ইঁট ও পাথর ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ।  শেষপর্যন্ত বিকেলের ঘরের দরজা ভেঙে সৌকত আলি ও তাঁর পরিবারের সদস্য়দের গ্রেফতার করা হয়। যদিও এই ঘটনা নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন পুলিশকর্মীরা।