তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর চালানোর পাশাপাশি পার্টি অফিস দখলের চেষ্টার অভিযোগে উত্তাল হল নদিয়া। ঘটনার জেরে সম্পূর্ণ বিপর্যস্ত শিয়ালদহ রাণাঘাট, শিয়ালদহ-গেদে রেল পরিষেবা। এবারেও অভিযোগের তীর বিজেপির বিরুদ্ধে।  ঘটনার পরে ব্যাপক উত্তেজনা নদিয়ার তারকনগরে।

ঘটনার প্রতিবাদে ও বিজেপি কর্মীদের  গ্রেফতারের দাবিতে তারকনগর রেল স্টেশনে রেল অবরোধ করে তৃণমূল কর্মীরা।বর্তমানে গেদে শিয়ালদহ ও গেদে রানাঘাট শাখায় ট্রেন চলাচল সম্পূর্ন বন্ধ।

সূত্রের খবর,মঙ্গলবার বিকেলে নদীয়ার কৃষ্ণগঞ্জ থানার তারক নগরে বিজয় মিছিল বের করে বিজেপি। তৃণমূলের অভিযোগ,বিজয় মিছিল শেষের পর বিজেপি কর্মীরা তারক নগরে তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে হামলা চালায়। অভিযোগ,দলীয় কার্যালয়ের সমস্ত কিছু ভাঙচুর করার পর  তৃণমূলের পতাকা খুলে ফেলে বিজেপির পতাকা লাগিয়ে দিয়ে চলে যায় বিজেপির সমর্থকরা। এই ঘটনার খবর জানাজানি হতেই এলাকায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন তৃণমূল কর্মীরা।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে কৃষ্ণগঞ্জ থানার পুলিশ।পরে ঘটনার প্রতিবাদে সন্ধ্যায়  দোষী বিজেপি কর্মীদের গ্রেফতারের দাবিতে রেল অবরোধ করে তৃণমূল কর্মীরা। 

যদিও তাঁদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি। তাঁদের অভিযোগ,তৃণমূল কর্মীরা নিজেরাই নিজেদের পার্টি অফিস ভাঙচুর করে বিজেপির ওপর মিথ্যা দোষারোপ করেছে।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত পার্টি অফিস দখল নিযে তরজা চলছে লোকসভা ভোট মেটার পর থেকেই। মুকুল পুত্র শুভ্রাংশু কিছুদিন আগেই এই তরজাকে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে বলেছিলেন, অফিসের দলিল, বিদ্যুৎ বিল দেখাতে পারলে পার্টি অফিসের দখলদারি ছেড়ে দেবেন। মুকুল-পুত্রের আস্ফালন যে নেহাতই মুখের কথা তা প্রমাণ হল আরও একবার।