করোনা, আমফান আগেই বিপর্যস্ত করেছিল সুন্দরবনের বাসিন্দাদের। এই অবস্থায় নতুন করে আশঙ্কায় ভুগছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। বসিরহাট মহকুমার রায়মঙ্গল নদীর বাঁধ ভেঙে চূড়ান্ত দুর্ভোগের শিকার গ্রামবাসীরা। হিঙ্গলগঞ্জের বেশ কয়েকটি এলাকায় নদীর নোনা জল ঢুকে সমস্য়ায় তৈরি হয়েছে। কার্যত জলের রয়েছে বাড়ি ঘর।

জানাগেছে, হিঙ্গলগঞ্জ ব্লকের যোগেশ গঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের মঙ্গলচণ্ডী গ্রামে রায়মঙ্গল নদীর ১০০ ফুট নদীবাঁধ ভেঙে যায়। তার জেরে পারঘুমটি, সর্দারপাড়া, মঙ্গলচণ্ডী সহ বেশ কয়েক গ্রাম প্লাবিত। গ্রামের মধ্য়ে নোনা জল ঢুকে সমস্য়ায় পড়েছেন গ্রামবাসীরা।

আরও পড়ুন-লকডাউনে 'অবাধে সুখ টান', হাওড়ার রামকৃষ্ণপুর ঘাটে চাঞ্চল্যকর ছবি

গ্রামবাসীদের দাবি, নদীবাঁধ ভেঙে যাওয়ায় গ্রামের অধিকাংশ বাড়িঘর জলের তলায় চলে গিয়েছে। সোমবার সকাল দশটা নাগাদ ওই এলাকায় নদী বাঁধ ভেঙে গ্রামে হু হু করে ঢুকতে থাকে নোনা জল। চাষের জমিতেও জল ঢুকে যাওয়ায় বড়সড় ক্ষতির আশঙ্কা করছেন চাষিরা। নোনা জল ঢুকে মেছো ভেরির মাছও নষ্ট হয়েছে বলে দাবি গ্রামবাসীদের।

আরও পড়ুন-সুখা মাটিতে শিকড় শক্ত পদ্মফুলের, এখন তৃণমূলের অবস্থান কোথায়

জলের তোড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ মেরামতিতে তোড়জোড় শুরু করেছে প্রশাসন। সেচ দফতর ও পঞ্চায়েত বাঁধ মেরামতির কাজে হাত লাগিয়েছে। বালিল বস্তা দিয়ে বাঁধ মেরামতির কাজ চলছে জোরকদমে। হিঙ্গলগঞ্জের বিধায়ক দেবেশ মণ্ডল সহ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব গিয়ে বাঁধ মেরামতির কাজ সরজমিনে খতিয়ে দেখেন। 

আরও পড়ুন-জঙ্গল ছেড়ে খাবারের খোঁজে লোকালয়ে ১৩ ফুটের পাইথন, চাঞ্চল্য বাঁকুড়ায়

গ্রামবাসীদের আশঙ্কা, আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর মহালয়া কলাকাটা অমাবস্যা। ভরা কোটালের কারনে নতুন করে ফুলে ফেঁপে উঠতে পারে রায়মঙ্গল নদী। এই অবস্থায় ফের নদী বাঁধ ভাঙলে চূড়ান্ত দুর্ভোগের শিকার হবেন  সুন্দরবনবাসী।