শুভজিৎ পুতুতুণ্ড, বারাসাত: 'পশ্চিমবঙ্গে দাঙ্গা করতে এলে সাধারণ মানুষ হাড়গোড় ভেঙে দাঙ্গাবাজরা যেখান থেকে এসেছে সেখানেই আবার পাঠিয়ে দেবে বাংলার মানুষ' বললেন বারাসাত পৌরসভার পৌর প্রশাসক সুনীল মুখোপাধ্যায়। রবিবার বিকেলে বারাসাত চাঁপাডালি তে দলীয় কার্যালয়ে বসে তিনি রীতিমতন হুংকার দিয়ে এই কথা বলেন। তিনি এও বলেন, কোনরকম প্ররোচনায় পা না দিতে। তিনি জানান সাধারণ নাগরিক থেকে শুরু করে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থক বা অন্য দলের কর্মী সমর্থকদের আমরা আবেদন জানাবো যেন এই সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে একসাথে আমরা লড়তে পারি। আমরা পুলিশ-প্রশাসনের কাছে আবেদন জানিয়েছি যাতে আরো বেশি নৈশকালীন টহলদারি জারি থাকে। পুলিশ প্রশাসন যেমন নজরদারি চালাচ্ছে পাহারা দিচ্ছে দিক পাশাপাশি এলাকায় এলাকায় প্রয়োজন পড়লে এই দাঙ্গাবাজদের ঠেকাতে সচেতন নাগরিকদের পাড়ায় পাড়ায় নজরদারি এবং রাত পাহারার ব্যবস্থা করতে হবে। কোনো ফাঁকফোকর রাখা যাবে না যাতে এই দাঙ্গাবাজরা সেই সুযোগ নিতে পারে। একেই করোনা তার ওপর শীতকালের রাত অনেক কিছু ওরা ঘটাতে পারে। তাই শুধু বারাসাত বাসি নয় এই জেলার প্রান্তে প্রান্তে মানুষকে সচেতন থাকতে হবে। ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে বিজেপি, শান্ত বাংলাকে অশান্ত করতে চাইছে তারা, সাধারণ মানুষের জীবন হানি ঘটাতে চাইছে। 

আরও পড়ুন- আমরা দাদার অনুগামী, শুভেন্দু অধিকারীর একের পর এক হোর্ডিং ঘিরে জল্পনা তুঙ্গে

আরও পড়ুন- 'দলের অন্দরে ক্ষোভ', তৃণমূল ভবনে অবস্থান বিক্ষোভে ২৩ জেলার ২৬০ তৃণমূল কর্মী

ভোটের আগেই এখন একরকম রাজনৈতিক তরজা চলছে সর্বত্র। একে অন্যের দলের বিরুদ্ধে রীতিমতন কাদা ছেটেনো চলছে। খবরের শীর্ষে একের পর এক দলীয় নেতার নাম উঠে আসছে। এবার এবারও তেমনই কথা বলতে শোনা গেল।  উত্তর 24 পরগনা জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যতম মুখপাত্র তথা বারাসাত পৌরসভার পৌর প্রশাসক সুনীল মুখোপাধ্যায়কে রবিবার সর্বসমক্ষে এই সমস্ত কথা বলেন।