শাজাহান আলি, মেদিনীপুর: ক্ষোভটা বাড়ছিলই, এবার কাটমানি বিক্ষোভের মুখে পরে সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন এক তৃণমূল কাউন্সিলর। তাঁর অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেই দলের অনেক নেতা আজ কাটমানি বিক্ষোভের মুখে পড়ে বিপদে পড়েছেন। 

অভিযোগকারী ওই তৃণমূল কাউন্সিলরের নাম মউ রায়। তিনি মেদিনীপুর পুরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। অভিযোগ, মঙ্গলবার এলাকার এক প্রমোটার দাবি করেন, একটি আবাসন নির্মাণের জন্য ওই তৃণমূল কাউন্সিলরকে দু' লক্ষ টাকা দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন। যদিও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেন মৌদেবী। ওই প্রমোটার এই দাবি স্বপক্ষে কোনও প্রমাণ দেখাতে পারেননি বলেও দাবি তাঁর। বিষয়টি নিয়ে তিনি থানাতেও যান। সেখান থেকে বেরিয়েই দলনেত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন ওই তৃণমূল কাউন্সিলর। 

আরও পড়ুন- কাটমানির টাকা হাতে পেলেন গ্রামবাসীরা, আড়ই লক্ষ খসল তৃণমূল নেতার

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করে তিনি বলেন,  'দিদি এটা বলে আমাদের মতো মানুষকে খুব বিপদে ফেলেছে। দিদি এরকমভাবে বলার পরেই হঠাৎ হঠাৎ লোকে এসে বলছে টাকা দেও। পুলিশ প্রমাণ চাইলেও তাঁরা প্রমাণ দিতে পারছেন না। এটা একটা ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। কাটমানি ফেরত দিতে হবে বলে যার তাঁর নামে মানুষ এভাবে অভিযোগ করবে?'

এখানেই থেমে থাকেননি ওই তৃণমূল কাউন্সিলর। তাঁর অভিযোগ, 'দিদি যদি মনে করে থাকেন আমি একাই সৎ, তাহলে ভুল। আমাদের মতো অনেক সৎ নেতাই আজ দিদির এই কথায় বিপদে পড়েছেন। এলাকার বয়স্ক মানুষরা আমার পাশে না থাকলে আমি আজ আরও বড় সমস্যায় পড়তাম। আমরা চরম সঙ্কটে পড়েছি, আতঙ্কে রয়েছি।' যদিও বিষয়টি দলীয় নেতৃত্বকে জানাবেন বলেও দাবি করেছেন ওই কাউন্সিলর।  

প্রসঙ্গত, গত ১৮ জুন কলকাতায় দলীয় নেতাদের উদ্দেশে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, কেউ কাটমানি নিয়ে থাকলে তা ফেরত দিতে হবে। এর পরেই জেলায় জেলায় বিক্ষোভের মুখে পড়েন তৃণমূলের জনপ্রতিনিধি এবং নেতারা।