বীরভূম থেকেই শুরু হয়েছিল কাটমানি ফেরানোর দাবিতে বিক্ষোভ। এবার সেই বীরভূমেই কাটমানির টাকা জনগণের হাতে তুলে দিলেন এক তৃণমূল নেতা। গুণে গুণে ১৪১ জন গ্রামবাসীর হাতে বকেয়া ১৬১৭ টাকা করে তুলে দিলেন তৃণমূলের অভিযুক্ত বুথ সভাপতি। 

ঘটনাটি ঘটেছে সিউড়ি- ২ নম্বর ব্লকের চাতরা গ্রামে। অভিযোগ, কোমা গ্রামপঞ্চায়েতের চাতরা গ্রামের তৃণমূল বুথ সভাপতি ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায় দীর্ঘ দিন ধরেই গ্রামবাসীদের একশো দিনের মজুরির টাকা আটকে রেখে দিয়েছিলেন। অভিযোগ, তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একশো দিনের কাজের মজুরি গ্রামবাসীদের হাতে দেওয়া হত না। নিয়ম মতো মজুরির টাকা শ্রমিকদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টেই জমা পরার কথা। 

আরও পড়ুন- কাটমানি ফেরাতে কালীঘাটে কাউন্টার খোলার হুমকি সায়ন্তনের, অভিষেককে নিশানা কৈলাসের

অভিযোগ, ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা জমা হলেও শ্রমিকদের দিয়ে সই করিয়ে সেই টাকা তুলে নিতেন অভিযুক্ত বুথ সভাপতি। তার পরে সেখান থেকে কাটমানি রেখে বাকি টাকা শ্রমিকদের দেওয়া হত। গোটা রাজ্যে কাটমানি বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পরে চাতরা গ্রামের বাসিন্দারাও টাকা ফেরানোর জন্য তৃণমূল নেতা ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায়ের উপরে চাপ সৃষ্টি করেন। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার ১৪১ জন গ্রামবাসীর হাতে একশো দিনের কাজের মজুরি হিসেবে প্রাপ্য বকেয়া টাকা তুলে দেন ওই তৃণমূল নেতা। হিসেব মতো এক একজন শ্রমিকের বকেয়া ছিল ১৬১৭ টাকা করে। সেই অনুযায়ী প্রায় ২ লক্ষ ২৮ হাজার টাকা ফেরত দেন ত্রিলোচন মুখোপাধ্যায়। 

টাকা হাতে পেয়ে স্বভাবতই খুশি গ্রামবাসীরা। তাঁদের অভিযোগ, এতদিন টাকা চাইলে পুলিশে ধরিয়ে দেওয়ার বা মারধরের হুমকি দিতেন ওই তৃণমূল নেতা।