পত্রলেখা বসু চন্দ্র, পূর্ব বর্ধমান: দু' চার লক্ষ নয়। একেবারে পয়তাল্লিশ লক্ষ টাকা কাটমানি নেওয়া হয়ে গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পরে সাহস পেয়ে এখন সেই টাকাই ফেরত চাইছেন এলাকার বাসিন্দারা। ফলে, মহা ফাঁপড়ে পড়েছেন পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের তৃণমূল বুথ সভাপতি উজ্জ্বল মণ্ডল। কাটশেষ পর্যন্ত মুচলেকা দিয়ে টাকা ফেরাতে কুড়ি দিন সময় চেয়ে আপাতত নিস্তার পেলেন তিনি। 

কাটমানি ফেরত চেয়ে জেলায় জেলায় বিক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছে। রবিবার সকাল থেকে আউশগ্রামের পুবার গ্রামে তৃণমূলের বুথ সভাপতি উজ্জ্বল মণ্ডলের বাড়িও ঘেরাও করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। আশপাশের এলাকা থেকেও অনেকে বিক্ষোভে যোগ দেন। অভিযোগ সরকারি বাড়ি তৈরির প্রকল্প এবং একশো দিনের কাজের প্রাপ্য টাকার একাংশ গ্রামবাসীদের থেকে আদায় করতেন তিনি। বাড়ি তৈরির প্রকল্পের টাকা পেলে কারও থেকে পাঁচ হাজার, কারও থেকে দশ হাজার টাকা করে নিয়েছেন উজ্জ্বলবাবু, অভিযোগ এমনই। 

আরও পড়ুন- কাটমানি ফেরাবেন, মুচলেকা দিয়ে স্বীকার বর্ধমানের দুই তৃণমূল নেতা

এ দিন বিক্ষোভের মুখে পড়ে টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে নেন ওই তৃণমূল নেতা। হিসেব কষে দেখা যায়, তাঁর একার নেওয়া কাটমানির পরিমাণ পয়তাল্লিশ লক্ষ টাকা। কিন্তু স্বীকার করলেই তো আর জনতা শান্ত হবে না, তাঁরা টাকা ফেরত চান। শেষ পর্যন্ত বিপুল পরিমাণ টাকা ফেরাতে কুড়ি দিন সময় চেয়ে নেন উজ্জ্বলবাবু। 

বিক্ষোভের মুখে পড়ে ওই তৃণমূল নেতা অবশ্য দাবি করেন, টাকা দলের কাজেই লাগানো হয়েছে। তাঁর উপরের স্তরে যে নেতারা রয়েছেন, তাঁদের হাতেও টাকা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী অতশত শুনতে নারাজ। তাঁদের সাফ কথা, যে টাকা নিয়েছে, তাকেই টাকা ফেরত দিতে হবে।