তাপসী চক্রবর্তী, বালুরঘাট:  স্রেফ সাধারণ মানুষই নন, জনপ্রতিনিধিদেরও বিপদ কম নয়। এ রাজ্যে ফের করোনা সংক্রমণের শিকার হলেন এক তৃণমূল বিধায়ক। মারণ ভাইরাস থাবা বসিয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জে বিধায়ক তোরাফ হোসেন মণ্ডলের শরীরে। আপাতত তাঁর ঠিকানা, বালুরঘাটের সেফ হোম। 

আরও পড়ুন: করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা, দার্জিলিং-এ পর্যটকদের আনাগোনায় ফের নিষেধাজ্ঞা জারি জিটিএ-এর

জানা গিয়েছে, জ্বর ও সর্দিতে ভুগছিলেন বেশ কয়েকদিন।  করোনা সংক্রমণ নয় তো? সন্দেহ হওয়ায় বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে বিধায়ক তোরাফ হোসেন মণ্ডলের সোয়াব বা লালারস পরীক্ষা করা হয়। পজিটিভি রিপোর্ট আসে। দ্বিতীয় দফার পরীক্ষার জন্য নমুনা পাঠানো হয় মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। সেই রিপোর্ট পজিটিভি আসে। এরপর আর ঝুঁকি নেয়নি প্রশাসন, বিধায়ককে বালুরঘাটে সেফ হোমে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। 

আরও পড়ুন: ব্য়াঙ্ক কর্মীদের সংক্রমণের হার বাড়ছে, পরিষেবা দেওয়া নিয়ে মুখ্যসচিবকে চিঠি সংগঠনের

এদিকে করোনা আক্রান্ত তৃণমূল বিধায়কের আচরণ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার। তাঁর প্রশ্ন, 'প্রাথমিক পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন জায়গায় সম্মেলন করেছে বিধায়ক তোরাফ হোসেন মণ্ডল। তাঁর বিরুদ্ধে কেন বিপর্যয় মোকাবিলা আইনে মামলা হবে না?' শুক্রবার ফের নতুন ১৫ জন করোনা সংক্রমিত হয়েছেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায়। সেই তালিকায় রয়েছেন গঙ্গারামপুরের বিডিও-ও। সবমিলিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল ২৯৮। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন ২২৩ জন।