বাংলায় নতুন রাজনৈতিক বিতর্ক এখন দু'টি শব্দকে নিয়ে। জয় শ্রীরাম বলা না বলা নিয়ে বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে রাজনৈতিক পারদ ক্রমশ চড়ছে। এতদিন জয় শ্রীরাম নিয়ে নেতাদের মধ্যে বাকযুদ্ধ চললেও এবার তা রাজনৈতিক হিংসায় পরিণত হল। জয় শ্রীরাম বলতে রাজি না হওয়ায় এক তৃণমূল কর্মীকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠল বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার তেহট্ট এলাকায়। আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীর নাম অর্জুন হালদার। তিনি হাসপাতালে ভর্তি। 

জানা গিয়েছে, তেহট্টের বেতাই বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তৃণমূল অফিসের সর্বক্ষণের কর্মী অর্জুন। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি যখন পার্টি অফিস বন্ধ করে ফিরছিলেন, তখনই ঘটনার সূত্রপাত. জানা গিয়েছে, সেই সময়ে কয়েকজন বিজেপি কর্মী সমর্থক বেতাই বাসস্ট্যান্ডে এসে জয় শ্রীরাম ধ্বনি দিতে শুরু করলে আপত্তি করেন অর্জুন। তা নিয়েই দু' পক্ষে বচসা শুরু হয়। অভিযোগ, বিজেপি কর্মীরা অর্জুনকে জয় শ্রীরাম বলার জন্য চাপ দেন, তাতে রাজি হননি অর্জুন। এর পরেই তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। 

ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবিতে থানায় অভিযোগ করেছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। বিজেপি নেতাদের পাল্টা প্রশ্ন, জয় শ্রীরাম বললে কেন আপত্তি জাানানো হবে?

জয় শ্রীরাম উচ্চারণ বলার জন্য এ রাজ্যে জেলে যেতে হয় বলে ভোট প্রচারে এসে অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে চ্যালেঞ্জ করে বলেছেন, ক্ষমতা থাকলে জয় শ্রীরাম বলা আটকে দেখান তিনি। পাল্টা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, ভোট এলেই রাম নিয়ে রাজনীতি করে বিজেপি। 

পঞ্চম দফা ভোটের দিনেও হুগলিতে তৃণমূল সমর্থকদের জয় শ্রীরাম বলার জন্য চাপ দেন বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়। পাল্টা তাঁকে বন্দে মাতরম এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জিন্দাবাদ স্লোগান শুনতে হয়।