বাড়ির মধ্যেই ইঁদুরের পিছনে ছুটছিল বিষধর। আশপাশে খেলা করছিল ছোট ছেলেমেয়েরাও। তার পরেও আতঙ্কিত হয় সাপটির ক্ষতি না করে ঠান্ডা মাথায় তাকে বাগে এনে বন দফতরের হাতে তুলে দিলেন বাড়ির বাসিন্দারা। 

ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা থানার বৈকন্ঠপুর গ্রামের। দুর্গাপদ জানা নামে এক গ্রামবাসীর বাড়ির পিছন দিকে এ দিন সকালে পেল্লায় সাইজের এক গোখরো সাপ বেরিয়ে আসে। একটি ইঁদুরকে তাড়া করছিল সাপটি। প্রথমে অবশ্য বাড়ির বাসিন্দারা বুঝতে পারেননি সেটি কী সাপ। কিন্তু সাপটিকে না মারার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। তবে কীভাবে সাপটিকে ধরা হবে, তা বুঝতে পারছিলেন না কেউই। 

আরও পড়ুন- উধাও ছিল আড়াই কোটি বছর! হঠাত পশ্চিমঘাটে শোনা গেল হিসহিসানি

আরও পড়ুন- স্বপ্নে সাপ দেখেন! জেনে নিন এর প্রকৃত অর্থ

শেষ পর্যন্ত বুদ্ধি করে বাড়িতে থাকা মাছ ধরার জাল সাপটির উপরে ছুড়ে দেন বাড়ির বাসিন্দারা। তাতেই ধরা পড়ে যায় গোখরো। মাছ ধরার জালে শরীর আটকে গেলেও সাপটির মাথা বেরিয়ে ছিল। সেখান থেকেই তীব্র আস্ফালন করছিল সে। 

সাপ ধরার খবর পেয়ে ভিড় জমান গ্রামবাসীরা। অনেকেই সাপটিকে মেরে ফেলার পরামর্শ দেন। কিন্তু তাতে কান দিয়ে বন দফতরকে খবর দেন বাড়ির বাসিন্দারা। কিছুক্ষণের মধ্যেই দাসপুরের সুলতাননগর অফিসের বন কর্মীরা সেখানে পৌঁছে গোখরোটিকে উদ্ধার করেন। যদিও জাল থেকে সাপটিকে আলাদা করতে বেশ বেগ পেতে হয় বনকর্মীদের। তার মাথা চেপে ধরে ধীরে ধীরে জাল কেটে তাকে বের করা হয়। শারীরিক পরীক্ষার পরে সাপটিকে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে বন দফতরের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।