প্রেম করছেন, কিন্তু প্রেমিকার দাবি মতো উপহার দিতে পারছেন না। গঞ্জনা সইতে না পেরে শেষপর্যন্ত আত্মঘাতী হলেন এক যুবক।  আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে মৃতের প্রেমিকাকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার গড়িয়ায়।

আরও পড়ুন: মদের আসরে বচসা, যুবককে ছাদ থেকে ফেলে দিল তাঁর বন্ধুরাই

মৃতের নাম মানস রানা। বাড়ি, গড়িয়ার নেতাজিপল্লিতে।  ওই এলাকায়ই থাকেন মানসের প্রেমিকা পল্লবীও। পরিবারের লোকেরা জানিয়েছেন, ছোটবেলা থেকেই একসঙ্গে পড়াশোনা করেছেন মানস ও পল্লবী। ক্রমেই ঘনিষ্টতা বাড়ে, একে অপরকে ভালোবেসে ফেলেন তাঁরা। বছর দুয়েকের সম্পর্কে প্রথমে সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। অভিযোগ, সম্পর্ক একটু গভীর হতেই পল্লবী প্রেমিকের কাছে দামী উপহার দাবি করতে শুরু করেন। উপহার না পেলে মানসের সঙ্গে রীতিমতো অশান্তিও করতেন তিনি। প্রেমিকার মন রাখতে সাধ্যের বাইরে গিয়েও উপহার দেওয়ার চেষ্টা করতেন মানস। জানা গিয়েছে,  দিন কয়েক আগে মানসের কাছে একটি দামী হার চেয়ে বসেন পল্লবী। কিন্তু তা কেনার সামর্থ্য ছিল না ওই যুবকের। যথারীতি শুরু হয় অশান্তি। এরইমধ্যে আবার অন্য এক যুবকের সঙ্গে পল্লবীর রেজিস্ট্রি বিয়েও হয়ে যায় বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: নববধূকে পেঁয়াজ উপহার দিলেন স্বামীর বন্ধুরা, দেখুন ভিডিও

বুধবার সকালে আত্মহত্যা করেন মানস রানা। গড়িয়ার নেতাজিপল্লির বাড়ি থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরিবারের লোকেদের অভিযোগ, সোনার হার না পেয়ে মঙ্গলবার রাতে মানসকে ভিডিও কল করেছিলেন পল্লবী। ভিডিও কলে প্রেমিককে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেন তিনি।  পল্লবীর বিরুদ্ধে নরেন্দ্রপুর থানায় এফআইআর করেন তাঁর প্রেমিকের পরিবারের লোকেরা। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মৃত্যু আগে মানসের সঙ্গে তাঁর প্রেমিকা কী কথা হয়ছিল, তা জানতে মৃতের মোবাইল ফোনটি তদন্তকারীরা খতিয়ে দেখবেন বলে জানা গিয়েছে।