স্বামীকে খুন করে নিজেই থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করল স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে বনগাঁ থানার নেহেরু নগর এলাকায়। বৃহস্পতিবার শঙ্করের রক্তাক্ত নিথর দেহ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়ে পরিবারের লোকেরা। বনগাঁ থানায় দিয়ে নিজে থেকেই আত্মসমর্পণ করে শ্যামা। এরপর বনগাঁ থানার পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে শংকর এর মৃতদেহ।

আরও পড়ুন, কেরোসিন ঢেলে গায়ে আগুন লাগালো স্বামী, প্রাণ বাঁচাতে পুকুরে ঝাঁপ গৃহবধূর


 এই এলাকার বাসিন্দা শংকর দের  প্রথম পক্ষের স্ত্রী চলে যাবার পর আড়াই বছর আগে শ্যামা দে (শান্তি ) কে বিয়ে করে। শঙ্করের পরিবারের দাবি, বিয়ের পর থেকেই শ্যামা  শংকর এর ওপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার করতো। এমনকি এক বছর আগে শ্যামা  বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। কিছুদিন আগে আবারও বাড়িতে ফিরে আসে বলে পরিবারের দাবি। এলাকাবাসীর দাবি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা বেলা নিজের বাড়িতে স্বামীকে খুন করে শ্যামা। প্রথমে হাতের শিরা কেটে এবং পরে গলায় ফাঁস দিয়ে তাকে খুন করে বলে অভিযোগ। পরে বনগাঁ থানায় দিয়ে নিজে থেকেই আত্মসমর্পণ করে শ্যামা। এরপর বনগাঁ থানার পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে শংকর এর মৃতদেহ।

আরও পড়ুন, করোনা টুঁটি টিপে ধরার আগেই মমতার পদক্ষেপ, রাতারাতি বাড়ছে আইসোলেশন বেডের সংখ্যা


 এই ঘটনায় বনগাঁ থানার নেহেরু নগর এলাকায় রীতিমত আতঙ্ক ছড়িয়েছে। ঘটনা জানাজানি হতেই কান্নায় ভেঙে পড়েন পরিবারের লোকেরা। ওই মহিলার শাস্তির দাবি জানায় প্রতিবেশীরা। পরিবারের লোক ও পাড়ার লোকেরা দাবি তুলেছেন, অভিযুক্তের যেন কঠোর শাস্তি হয়। অভিযুক্তকে বনগাঁ থানার পুলিশ গ্রেফতার করেছে। 

আরও পড়ুন, কারও সর্বনাশ, তো কারও পৌষমাস, 'করোনা বাজারে' 'লাখ টাকা' কামাচ্ছেন দর্জি রব্বানি