বাথরুমের দেওয়ালে রক্ত দিয়ে প্রেমিকের নাম লিখে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন নিউ টাউনের এক তরুণী চিকিৎসক। নিজের মৃত্যু জন্য ওই যুবকই দায়ী বলেই বাথরুমের দেওয়ালে লিখেছিলেন তরুণী। মদ্যপ অবস্থায় তিনি এই কাণ্ড ঘটান। মদের বোতল ভেঙেই সেই কাচ দিয়ে হাত কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। পরে পুলিশ গিয়ে দরজা ভেঙে তাঁকে উদ্ধার করে। 

পুলিশ সূত্রে খবর, নিউ টাউনের একটি আবাসনে একাই থাকতেন পেশায় চিকিৎসক ওই তরুণী। তাঁর বাবা একজন প্রাক্তন আইএএস অফিসার। এ দিন বিকেলে বাবাকে এসএমএস করে ওই তরুণী জানান, তিনি আত্মহত্যা করতে চলেছেন। এর পরে তরুণীর বাবা চেষ্টা করেও তাঁকে ফোনে পাননি। বাধ্য হয়ে তিনি বিষয়টি ওই তরুণীর এক প্রতিবেশীকে ফোন করে জানান। কিন্তু বার বার ডাকাডাকির পরেও ওই তরুণী দরজা খোলেননি। এর পরে আবাসনের অন্যান্য আবাসিকরাই নিউ টাউন থানায় খবর দেন। পুলিশ গিয়ে দরজা ভেঙে রক্তাক্ত অবস্থায় তরুণীকে উদ্ধার করে। 

হাত কিছুটা কাটলেও ওই তরুণীর গুরুতর কোনও ক্ষতি হয়নি। ঘরের ভিতর থেকে আধ খাওয়া একটি মদের বোতলও উদ্ধার করে পুলিশ। বাথরুমের দেওয়ালে রক্ত দিয়ে এক যুবকের নাম লিখে তাঁকে নিজের মৃত্যুর জন্য দায়ীও করেছেন ওই তরুণী। বেসিনের মধ্যেও রক্ত পড়েছিল। তাঁর অভিযোগ, ওই যুবক বার বার তাঁকে ব্ল্যাকমেল করে টাকা নিচ্ছে। পুলিশের ধারণা, কোনওভাবে তরুণীর সঙ্গে ওই যুবকের সম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। তারই জেরে সমস্যার সূত্রপাত। সম্পর্কের টানাপোড়েন নাকি এর পিছনে অভিযুক্ত যুবকের সত্যি কোনও অভিসন্ধি ছিল, তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা। অভিযুক্ত ওই যুবকের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পেতে ওই তরুণীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। তাঁর প্রাথমিক চিকিৎসারও ব্যবস্থা করা হয়।

রাতেই তরুণীর পরিবারের সদস্যরা এসে তাঁকে বাড়ি নিয়ে যান। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নিউ টাউনের সিই ১৩৬ নম্বর ঠিকানার ওই আবাসনের চারতলার একটি ফ্ল্যাটে একাই থাকতেন ওই তরুণী। তবে নিয়মিত তিনি এখানে আসতেন না, মাঝেমধ্যে থাকতেন ওই ফ্ল্যাটে।