মদ্যপ অবস্থায় পথ চলতি মহিলাদের 'কটুক্তি'। বেয়াদপি আর কতদিন সহ্য করা যায়! যুবককে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে গণধোলাই দিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। শেষপর্যন্ত নিজের ভুল স্বীকার করে নিলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়ায়।

আরও পড়ুন: বাড়ির ছাদ থেকে পড়ে ডান্সারের মৃত্যু, খুন না আত্মহত্যা তদন্তে পুলিশ

আরও পড়ুন: জঙ্গল থেকে ক্ষেত, খাবার নেই কোথাও, লোকালয়ে হাতির আতঙ্ক

ওই যুবকের নাম কাশী দাস। রোজ সকালে হলেই আকণ্ঠ মদ্যপান করে বাঁকুড়ার কাঞ্চন মোড় এলাকায় এসে হাজির হত সে। স্থানীয় বাসিন্দারের অভিযোগ, রাস্তায় দিয়ে কোনও মহিলাকে যেতে দেখলেই কটুক্তি ও আশালীন করত কাশী। রেহাই পেতেন না বয়ষ্ক মহিলারাও। দিনের পর দিন এমন ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে গিয়েছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের ধৈর্য্যের বাঁধ ভাঙল বৃহস্পতিবার সকালে।  স্থানীয় মহিলাকে উদ্দেশ্য করে যখন কটুক্তি করছিল ওই যুবক, তখন তাকে ধরে ফেলেন এলাকার কয়েকজন। এরপর রাস্তার পাশে ল্যাম্পপোস্টে বেঁধে শুরু হয় গণধোলাই।  স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, মার খেয়ে নিজের ভুল স্বীকার করে নেয় কাশী এবং ভবিষ্যতে আর মহিলাদের কটুক্তি না করারও প্রতিশ্রুতিও দেয়। তাই পুলিশে খবর দেওয়া হয়নি, ছেড়ে দেওয়া হয় ওই যুবককে। 

 

এর আগে উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটে ছাত্রীকে কুপ্রস্তাব দেওয়ার অভিযোগ গণপিটুনির শিকার হন খোদ পুলিশকর্তা। হাড়োয়া থানার এএসআই একাদশ শ্রেণির দুই ছাত্রীকে কুপ্রস্তাব ও অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করেছিলেন বলে অভিযোগ। ঘটনার প্রতিবাদে অভিযুক্ত পুলিশ আধিকারিকদের বাড়িকে চড়াও হন স্থানীয় বাসিন্দারা। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় গাড়িতেও।