গত কয়েকবছর হল ভারতের মত বাংলাদেশেরও অনলাইন শপিংয়ে বিপ্লব এসেছে। প্রতিবেশী এই দেশে এখন বছরে এক হাজার কোটি টাকার পণ্য বিক্রি হয় অনলাইনে। আর প্রতিদিন অনলাইনে ডেলিভারি দেওয়া হয় ২০ হাজার অর্ডার। করোনা সংক্রমণের করাণে এখন ভারতের মত বাংলাদেশেও সামাজিক দূরত্বের বিধি বজায় রাখতে হচ্ছে। বাইরে বের হওয়া নিয়ে রয়েছে নিষেধাজ্ঞাও। ফলে আরও বাড়ছে অনলাইন শপিংয়ের জনপ্রিয়তাও। আর এসবের মধ্যেই শেখ হাসিনার দেশে এবার পেতে চলেছে প্রথম আন্তর্জাতিক অনলাইন শপিং সাইট। আর সেখানেও জড়িয়ে রয়েছে ভারতের নাম। কারণ, ভারত ও বাংলাদেশ দুই তরফের ব্যবসায়ীদের যৌথ প্রয়াসেই আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে ইন্দো-বাংলা বাজার নামের ওয়েবসাইটটি।

আরও পড়ুন: সি-ফুড আর মাংসের বাজারই করোনার আঁতুড়ঘর, ঢোক গিলে অবশেষে শিকার করল চিন

আইবিবাজার ডট কম নামের এই অনলাইন শপিং সাইটের মাধ্যমে দুই বাংলার মানুষই তাঁদের পছন্দের জিনিস কিনতে পারবেন অতি সহজে। কলকাতার ঘরে বসেই মিলবে বাংলাদেশের নামকরা জামদানি বা ইলিশ মাছ। আবার ঢাকায় বসেই মিলবে এপার বাংলার নামি-দাবি বিপণনির সব জিনিসপত্র। ইচ্ছে করলে গ্রাহত দাম মেটাতে পারবেন নিজেদের ওয়ালেট থেকেও । ব্যাঙ্ক পে-র পাশাপাশি থাকছে অনলাইন পে-র সুবিধাও। বিশেষ ক্ষেত্রে থাকছে পে অন ডেলিভারির সুযোগও । দুই দেশের ক্রেতারাই একই সুবিধা পাবেন , অর্থাৎ নিজ নিজ দেশের মুদ্রা দিয়েই নিতে পারবেন তাঁদের পছন্দের সামগ্রী।

আরও পড়ুন: হোয়াটসঅ্যাপে ঘুরছে গালওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষে নিহত ৩০ জন চিনা সৈনিকের নাম, কী বলছে বেজিং প্রশাসন

দুই দেশের ব্যবসা ক্ষেত্রে এতদিন মুদ্রা বিনিময়ই  ছিল প্রধান সমস্যা। এই সমস্যাকে দূর করার ভাবনা থেকেই এই অনলাইন শপিং এর ভাবনা, জানালেন উদ্যেগের প্রধান পরিকল্পনাকারী ঢাকার ব্যবসায়ী মশিউর রহমান। আত্মপ্রকাশের সাথে সাথেই জনপ্রিয় হবে ইন্দো-বাংলা বাজার, এমনটাই আশাবাদী মশিউর রহমান। অন্যদিকে সমান আশাবাদী এই ভাবনার অন্যতম উদ্ভাবক এবং প্রকল্পের প্রধান উদ্যোক্তা, কলকাতার ব্যবসায়ী লায়ন মুমতাহিন জিয়নও। শুধু সাধারণ ক্রেতা নন, পাইকারি ও খুচরো ব্যবসায়ীদেরও পাশে থাকবে আই বি বাজার, জানালেন লায়ন মুমতাহিন জিয়ন। তিনি আরো জানান, বাংলাদেশ ও ভারতের সাধারন ক্রেতারা যাতে  ঘরে বসেই বিশ্বের সেরা সামগ্রী পেয়ে যায় এই স্বপ্ন বাস্তবায়িত করাই তাঁর লক্ষ্য। 

খুব শীঘ্রই পথচলা শুরু করবে ইন্দো-বাংলা বাজার। গুগল প্লে, অ্যাপেল স্টোর থেকে ডাউনলোড করা যাবে আইবি বাজার অ্যাপটি।  আর তার পরেই ভারত, বাংলাদেশ, আমেরিকা, জাপান, তাইওয়ান, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড সব বিশ্বের নানা  দেশের পণ্য সামগ্রী আইবি বাজারের হাত ধরে পৌঁছে যাবে একেবারে আপনার ঘরের আন্দরে।  ফ্রান্স, রাশিয়া, সুইজারল্যান্ড মত আধুনিক পাশ্চাত্য বিশ্বের সৌখিন সামগ্রীও মিলবে এই অনলাইন বাজারে।