মহলয়া, বাঙালীর সঙ্গে ওতোপ্রতো ভাবে জড়িয়ে থাকা এই লগ্নটি ঘিরে ইতিহাস অনেক। দেবীপক্ষের পূর্ণলগ্নে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের কণ্ঠে আজও মহিষাসুরমর্দিনী বাঙালীর জীবনে এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। আর সেই ইতিহাসই ১০১৮ সালে বড় পর্দায় তুলে ধরেছিলেন পরিচালক সমীক সেন। তৈরি করেছিলেন ছবি মহালয়া। বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র-র কণ্ঠ সমপ্রচারিত হওয়া এই বেতার অনুষ্ঠানকে ঘিরেই তৈরি হয়ছিল ছবির চিত্রনাট্য। যেখান থেকে বাদ পরেনি মহানায়ক উত্তমকুমা-এর অনুপ্রবেশের কাহিনীও।

বাঙালীর মনে জায়গা করে নেওয়া এই ছবির জনপ্রিয়তা ছিল তুঙ্গে। এবার সেই ছবির শীরেই উঠল শ্রেষ্ঠত্বের শিরোপা। চলচ্চিত্র জগতের সর্বশ্রেষ্ঠ পুরষ্কার দাদা সাহেব ফালকে ২০১৯,-এ মহালয়া ছবি জিতে নিল সেরা স্ক্রিন প্লে তকমা।

পরিচালক সমীক সেন নিজেই ছবির স্ক্রিন প্লে তৈরি করেছিলেন। তারই হাতে উঠে এল এই সন্মান, স্বর্ণকমল সহ দশ লক্ষ টাকা নদগ পুরষ্কার। এটিই ছিল পরিচালকের প্রথম বাংলা ছবি।

মহালয়া ছবিতে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র-র ভূমিকায় অভিনয় করেছেন শুভাশিস মুখোপাধ্যায়, এবং উত্তমকুমারের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন যিশু সেনগুপ্ত। সরকারী পদস্থ অধিকর্তার ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। গতবছর মার্চ মুক্তি পেয়েছিল মহালয়া।

শ্রেষ্ঠ এই সন্মান প্রাপ্তীর সঙ্গে সঙ্গে সংস্কৃতিক মহলে অনেক চর্চাও হয়েছিল এই ছবিকে ঘিরে। মহালয়া বেতার অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে নানান খুঁটিনাটি ক্রটি বিচ্যুটি থেকে বিরত থেকে তবে তা পর্দার সামনে তুলে ধরেছিলেন পরিচলক, নচেৎ বাঙালীর আবেগে তা আঁচড় কাটতে সময় নিত না।