সাহিত্যপ্রেমী মানুষের কাছে 'পথের পাঁচালি'র অপু মানেই পুরোনো এক নস্ট্যালজিয়া। আর সেই পুরোনো নস্ট্যালজিয়াকে ফিরিয়ে আনতে মরিয়া হয়ে পড়েছেন পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্র। সালটা ১৯৫৯। সত্যজিৎ রায় পরিচালিত  'অপুর সংসার' যেখানে শেষ হয়েছিল  সেখান থেকেই গল্প বলা শুরু করবে 'অভিযাত্রিক'। সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে ছবির টিজার। সাদা কালো ফ্রেমে স্কেচের মাধ্যমে একে একে ফুটে উঠবে সিনেমার চরিত্রগুলি। সাদাকালো ফ্রেমে  প্রকাশ্যে এসেছে অপু, অপর্ণা, কাজল, রানুদি, শঙ্কর। চারিদিকে  আলোর রোশনাই, গ্ল্যামারের ঝলকানির মধ্যে যে সাদা-কালো ফ্রেম বিন্দুমাত্র ম্লান লাগবে না তা ছবির লুক দেখেই বোঝা গিয়েছিল। এবার ছবির টিজারে তা যেন আরও উৎসাহটাকে দ্বিগুন বাড়িয়ে দিল।

 

'পথের পাঁচালি' বাঙালি সাহিত্যপ্রেমীর কাছে নস্ট্যালজিয়া। বৃষ্টিভেজা মাঠ, রেলগাড়ির সাইরেন, পদ্মপাতায় জমা বৃষ্টির জলের আওয়াজ আজও বাঙালীর মননে গেঁথে রয়েছে। আবার সেই নস্টালজিয়া ফিরছে সিনেমার রূপোলি পর্দায়। ডিজিটাল যুগের চোখধাঁধানো গ্ল্যামার নয়, আলোর ঝলকানি নয়, সম্পূর্ণ সাদা-কালোতেই ফিরছে অপু-অপর্ণা। পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্রের হাত ধরেই আবারও সেই পুরোনো দিনে ফিরে যাবে বাঙালি দর্শক।

 

 

আরও পড়ুন-শীঘ্রই গাটছড়া বাঁধতে চলেছেন বরুণ-নাতাশা, প্রকাশ্যে এল বিয়ের তারিখ...

অপু-দূর্গাকে নিয়ে বাঙালির অনেক ইমোশন জড়িয়ে রয়েছে। তাই প্রথম থেকেই ছবি নিয়ে কোনওরকম আপোস করতে রাজি ছিলেন না পরিচালক শুভ্রজিৎ। ছবিতে অপুর চরিত্রে অভিনয় করছেন অর্জুন চক্রবর্তী। অর্পণার ভূমিকায় রয়েছেন দিতিপ্রিয়া রায়।  অপু-অপর্ণার চরিত্রে অজুর্ন , দিতিপ্রিয়াকে কেমন লাগবে তা নিয়ে অনেকদিন ধরেই কৌতুহল দানা বাঁধছিল। অবশেষে শেষ হল প্রতীক্ষা। সম্প্রতি প্রকাশ পেল ছবির চরিত্রদের প্রথম লুক। ছবিতে রানুদির চরিত্রে দেখা যাবে শ্রীলেখা মিত্রকে,শঙ্করের ভূমিকায় সব্যসাচীকে, অপুপুত্র কাজলের চরিত্রে আয়ুষ্মানকে দেখা যাবে। সম্প্রতি শেষ হয়েছে 'অভিযাত্রিক'  এর শ্যুটিং।  এই প্রথম একসঙ্গে সিনেমায় অভিনয় করবেন সব্যসাচী ও অর্জুন চক্রবর্তী। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী বারাণসী, ডুয়ার্স, বোলপুর, টাকি-তে ছবির শ্যুটিং শেষ করা হয়েছে।

 

 

আরও পড়ুন-অন্তর্বাস না পরেই ছবি পোস্ট, মুহূর্তে ভাইরাল এষার উন্মুক্ত বক্ষের ছবি...

৬০ বছর আগের স্মৃতি আবারও যেন উসকে দিল পরিচালক। 'খাবার পরে, একটা করে কথা দিয়েছ'-বাঙালির মননে আজও টাটকা এই বিখ্যাত লাইনটি। বাঙালির দাম্পত্য জীবনের একটি অনন্য অঙ্গ যা ভালবাসার অন্যকম অংশ হয়ে উঠেছে। সৌমিত্র-শর্মিলার যুগলবন্দী দৌলতেই তা সম্ভব হয়েছে। আবারও সেই ম্যাজিককে রিক্রিয়েট করতে চলেছেন পরিচালক শুভ্রজিৎ। অপু চরিত্রের স্রষ্টা বিভূতিভূষণ এবং অপু-দূর্গার আখ্যানকে বিশ্বের  দরবারে সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য এই ট্রিবিউট। ৬০ বছর আগের সেই ফিলটা পরিচালক তুলে ধরতে চলেছেন এই চলচ্চিত্রে। অপু ওরফে অপূর্ব কুমার রায় এবং তার ছেলের মধ্যেকার সম্পর্কের নানা ওঠাপড়ার কাহিনি তুলে ধরা হবে এই চলচ্চিত্রে। ছবির প্রযোজনা করছেন গৌরাঙ্গ জালান। ছবির এই সাদা-কালো ফ্রেম , সম্পর্কের রসায়ন যে ৬০ বছর আগে নিয়ে যাবে তা কিন্তু নিঃসন্দেহে বলা যায়।