অভিনয় দিয়ে যাত্রা শুরু। একের পর এক ছবি করে সকলের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন নুসরত জাহান। কেরিয়ার জীবনের শুরুতে অনের ভাঙা গড়ার মধ্যে দিয়ে গেলেও বর্তমানে তিনি টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী। একের পর এক বক্স অফিস হিট ছবি উপহার দিয়েছেন তিনি দর্শকদের। তবে কেরিয়ারে নয়া মোড় নিয়েছিল ২০১৯-এর ১২ই মার্চ। 

আরও পড়ুনঃ করোনার কোপ বক্স অফিসে, পিছিয়ে গেল একাধিক ছবির মুক্তি

আরও পড়ুনঃ করোনা আতঙ্কে কান, উৎসব বাতিলের সম্ভাবনা তুঙ্গে

লোকসভা নির্বাচনের দিন ক্রমেই এগিয়ে আসছিল। এগিয়ে এসেছিল প্রার্থী ঘোষণার দিনও। খবরের শিরোনামে যখন উঠে এসেছিল একের পর এক নেতা-মন্ত্রীদের নাম, কখনই শোনা গিয়েছিল তৃণমূলের পক্ষ থেকে বসিরহাটে প্রতিদ্বন্দী করবেন নুসরত জাহান। সেই তালিকে ছিল আরও এক চমক। যাদবপুর থেকে নাম উঠে এসেছিল মিমি চক্রবর্তীর। দুই নতুন প্রার্থীকে দেখে শুরু হয়ে গিয়েছিল নেট দুনিয়ায় শোরগোল। 

 

আরও পড়ুনঃ মাল্টিপ্লেক্সের দাপটে বন্ধ হল রক্সির দরজা, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শেষ শো

এরই মাঝে কেটে গিয়েছে একটি বছর। ভোটের প্রচার, জয়লাভ, মানুষের পাশে দাঁড়ানো, ছোট ছোট কাজের মধ্যে দিয়েই নুসরত আরও সকলের কাছে পৌঁচ্ছে যায়। সাংসদ হিসেবে নিজের মতামত সকল জায়গায় তুলে ধরে। বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মুখও খুলেছেন। তবে প্রথমার্থে কোথাও যেন দর্শকেরা অভাব বোধ করছিলেন অভিনেত্রীর পর্দায় উপস্থিতি, সেই খামতিও মিটিয়েছিলেন নুসরত। বছরের শুরুতেই মুক্তি পেয়েছিল অসুর। সেই সকল স্মৃতি উষ্কে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলেন নুসরত ঠিক এক বছর আগের দিনটি। যেখানে প্রকাশ্যেই জানিয়ে ছিলেন রাজনীতিতে আসার ইচ্ছে ছিল বটে, তবে নাম ঘোষণা হবে জানতেন না। এই সুযোগ পেয়ে তিনি নিজেকে ধন্য মনে করেছেন। তাঁর প্রতি এই বিশ্বাস-ভরসা রাখায় বিশেষ বার্তায় মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানালেন নুসরত জাহান।