সারা দেশ জুড়ে করোনা রুখতে  লকডাউনের ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। করোনা আতঙ্ক রুখতে তৎপর হয়েছে প্রশাসনও। তারপরেও কোনওভাবে আটকানো যাচ্ছে না মারণ ভাইরাসকে। হু হু করে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। আর সরকারি হাসপাতাল গুলোতেও ক্রমশ কমছে বেডের সংখ্যা। এই সুযোগকেই কাজে লাগিয়ে কোভিড চিকিৎসায় লক্ষ লক্ষ টাকা বিল ধরাচ্ছে বেসরকারি হাসপাতালগুলি। বেসরকারি হাসপাতাল গুলি এই জালিয়াতি কান্ডকারখানার বিরুদ্ধে এবার সরব হলেন অভিনেত্রী ঋতাভরী চক্রবর্তী।

আরও পড়ুন-ভুয়ো সম্পর্ক ছড়ানোর অভিযোগে ফের কাঠগড়ায় করণ, কড়া ভাষায় কি জবাব দিয়েছিলেন 'বাহুবলি'...

সারা দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে করোনা আতঙ্কে। আর এই সময়টারই পুরো ফায়দা তুলছে বেসরকারি হাসপাতালগুলি। নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় এবার গর্জে উঠেছেন অভিনেত্রী। কোভিডের নাম করে এমন অমানবির ব্যবহারে কড়া নিন্দা করেছেন ঋতাভরী। চিকিৎসার নামে হাসপাতালগুলি যা করছে তাকে ডাকাতি বলেও কটাক্ষ করেছেন অভিনেত্রী। নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ কিছু দাবিও তুলেছেন সকলের উদ্দেশ্য। কয়েকটি এমন পয়েন্ট সকলের সামনে তুলে ধরেছেন, যার ফলে সত্যিটা যেন আরও পরিস্কার। দেখে নিন অভিনেত্রীর পোস্টটি।

 

ঋতাভরী জানিয়েছেন,  কোভিড চিকিৎসার জন্য প্রাইভেট হাসপাতালগুলো লক্ষ লক্ষ টাকার প্যাকেজ রাখছে। রীতিমতো যাকে ডাকাতি বলা যায়। অথচ, সরকারি ব্যবস্থাপনায় একই চিকিৎসার খরচ অনেক কম। কিন্তু,সাধারণ মানুষ হয়রান হচ্ছে সরকারি হাসপাতালের রেফারের গোলকধাঁধায়।
এই পরিস্থিতিতে আমাদের দাবী: 


১. সমস্ত হাসপাতালের কোভিড চিকিৎসা সরকারী এক্তিয়ারে নিয়ে আসা হোক।
২.কোভিড হাসপাতালগুলি ইন্টারলিংক রাখুক যাতে কোন হাসপাতালে ক'টা বেড পাওয়া যাচ্ছে, প্রত্যেকের কাছে খবর থাকে।
৩. কোনো রোগীকেই ফেরানো যাবেনা। প্রত্যেক নাগরিকের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসার দায় কিন্তু সরকারের।এটা আমরা এবং সরকার উভয়েই ভুলতে বসেছি।
৪. রোগী পিছু ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীর অনুপাত(রেশিও) আজ চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, আমাদের আরো অনেক ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী দরকার। সেদিকে লক্ষ্য রেখে সরকারি উদ্যোগে আরো মেডিকেল কলেজ ও নার্সিং ট্রেনিং কলেজ গড়ার পরিকল্পনা চাই।