মুক্তির আগেই এই ছবি নিয়ে অনেক তর্ক-বির্তক হয়ে গেছে। ছবির বিষয় নিয়ে অনেক সমালোচনার চৌকাঠ পেরিয়ে অবশেষে মুক্তির পথে  এসেও আটকে গেল অভিমন্যু মুখোপাধ্যায়ের  পরিচালিত ছবি 'টেকো'। নানা টানাপোড়েনের পরে শেষ পর্যন্ত ছবি মুক্তিতে স্থগিতাদেশ দিল আদালত। ২২ নভেম্বর ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে আসার কথা ছিল। কিন্তু তা আর  হল না। আইনি ঝামেলায় জড়িয়ে ছবি মুক্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়ল। ছবি তো অনেক দূর, ছবির ট্রেলরও নাকি দেখানো যাবে না এমনই নির্দেশ দিয়েছে আদালত। 

আরওপড়ুন-সিনেমার ইতিহাসকে স্মরণ করে সাজল নন্দন, কেআইএফএফ-এ নয়া আকর্ষণ...

ছবি নিয়ে শুরু থেকেই তর্ক-বির্তক চলেই আসছে।  হিন্দি ছবি 'উজড়া চমন' এবং 'বালা' এই ছবি দুটির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই বাংলা ছবি 'টেকো' বানানো হয়েছে। আর ছবির বিষয়বস্তুও নাকি এক। এই নিয়ে তরজা চলছিল প্রযোজক-পরিচালকদের মধ্যে। তবে উল্লেখ্য,'টেকো' ছবির গল্প সম্পূর্ণ আলাদা এই দুই ছবির থেকে। প্রতিযোগিতার বাজারে ক্রেতা ধরে রাখতে বিভিন্ন আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপণ দিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে যেভাবে হাজার হাজার মানুষকে বোকা বানানো হচ্ছে, তার থেকে মানুষকে সাবধান হওয়ার বাণীই দিয়েছন পরিচালক 'টেকো' ছবিতে। 

আরও পড়ুন-চলচ্চিত্র উৎসবে সৌরভের অভিষেক, অমিতাভ শাহরুখদের পাশে এবার মহারাজও...

ছবির ট্রেলর ঘিরেই মূল সমস্যার সূত্রপাত। ট্রেলরে ছবির অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তীর মাথায় যে তেল মেখে  চুল গজানোর দৃশ্য দেখানো হয়েছে সেই তেলের বোতলটির সঙ্গে নামী এক প্রস্তুতকারক সংস্থার  হুবহু মিল রয়েছে।  যদিও সেই বোতলের গায়ে কোনও সংস্থার নাম দেখানো হয়নি। এমনই দাবি করেছে সংস্থার পক্ষ থেকে। আর সেই জন্যই ছবি মুক্তিতে স্থগিতাদেশ চেয়ে ছবি মুক্তি বন্ধ রাখার আর্জি জানিয়েছে ওই সংস্থা। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ,এতে ক্রেতারা ভুল বুঝবেন এবং তাদের ৬০০ কোাটি টাকার ব্যবসায় লোকসান হতে পারে।

আরও পড়ুন-অপমানে কি মুখ ফেরাচ্ছেন প্রসেনজিৎ, দুরত্ব তৈরি হচ্ছে মমতার সঙ্গে...

ছবির পরিচালক অভিমন্যু জানিয়েছেন,  'বিষয়টি আইনি পদ্ধতির মধ্যে রয়েছে '। সূত্র থেকে আরও জানা গেছে,ইউটিউব বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে 'টেকো'-র যাবতীয় দৃশ্য যাতে ওই তেলের বোতল দেখানো হয়েছে তা তুলে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। ছবি মুক্তি নিয়ে আপাতত দ্বন্ধে রয়েছে প্রত্যেকেই। সুতরাং সুরিন্দর ফিল্মস প্রযোজিত 'টেকো' কবে মুক্ত পাবে তা এখনই কিছু বলা যাচ্ছে না।