করোনা আতঙ্কে গ্রাস করেছে গোটা বিশ্বকে। ইতিমধ্যেই বিশ্বের বহু প্রান্তের মানুষ স্বেচ্ছায় আইসোলেশনে যাচ্ছেন। অভিনেতা থেকে অভিনেত্রী, সাধারণ মানুষ প্রত্যেকেই কোভিড-১৯-এর জেরে গৃহবন্দি। সেই তালিকা থেকে বাদ নয় টলি অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। এই পরিস্থিতিতে তিনি রয়েছেন সেলফ আইসোলেশনে। মহামারি থেকে নিজেকে বাঁচাতে সমস্ত সচেতনতা অবলম্বন করছেন অভিনেতা। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন কোয়ারেন্টাইনে কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন তিনি। নিজের সময় কাটানোর অভিজ্ঞতা বলতে গিয়ে তার গলায় উঠে এসেছে চিন্তার স্বর। স্বয়ং মাননীয়া মুখমন্ত্রীকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে ভীষণ চিন্তিত হয়ে রয়েছেন অভিনেতা। 

আরও পড়ুন-'পাড়ায় গিয়ে ফেলে পেটাব', সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিনেতাকে 'চাপকানো'র শাসানি যুবকের...

অভিনেতা জানিয়েছেন, 'যে মানুষটার কথায় প্রায় সব মানুষ ভরসা করেন বা যার কথা সকলেই শোনেন তিনি হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি নিজে যেভাবে সব মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছেন তা সত্যিই সকলকে ভাবাচ্ছে।  মুখে মাস্ক পরে থাকলেও এই বয়সে ওনার না কিছু হয়ে যা সেটা নিয়েই  আমার চিন্তা হচ্ছে। ওনার মানসিক জোর অনেকের থেকে অনেকটাই বেশি।  অভিনেতা আরও জানিয়েছেন, ওনার দলের যারা আরেকটু কম বয়সের ভরসা যোগ্য ব্যক্তি রয়েছেন তাদের প্রকাশ্যে এবার আনা উচিত বলে আমি মনে করি।কারণ এখন সকলেরই একসঙ্গে মিলে কাজটা করা উচিত বলে মনে হয়।'

আরও পড়ুন-রূপকথার গল্প এবার প্রকাশ্যে, লকডাউনে ভাইরাল সৃজিত-মিথিলার বিবাহ-ডায়েরি...

করোনা ত্রাণেও নিজের সাধ্যমতোই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অভিনেতা। এর পাশাপাশি সকলকে সচেতনতার বার্তাও দিয়েছেন অভিনেতা। সম্প্রতি কিছুদিন আগেই বাড়িতে বসেই একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন অভিনেতা। ভিডিওটি ভাইরাল হতে বেশি সময়ও নেয়নি। করোনা আতঙ্কের মধ্যে যুবসমাজের কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন অভিনেতা। কথা বলার সময়ে নিজের চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি অভিনেতা। ভিডিওটিতে রুদ্রনীল জানিয়েছেন, সবার আগে তাদের কথা ভাবুন, যারা ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৩-৪ ঘন্টা বাড়িতে ঘুমাতে আসত। ঘুম থেকে উঠে বাড়ি থেকে আবার বেরিয়ে যেত পার্টি করতে  তারা এই পরিস্থিতিতে বাড়িতে রয়েছে। এমনকী তারা একটু বেশিক্ষণ বাড়িতে থাকলে  বাড়ির লোকেদের চিন্তা হতো শরীর ঠিক আছে তো, তারা এই পরিস্থিতিতে বাড়িতে রয়েছে। আবার অনেক সুন্দরীরা মেক-আপ করে বাড়ির বাইরে বেরিয়ে যেত, পার্লারে যেত, তাদের এখন কী হবে? তাদের মেক আপ শেষ হয়ে যাবে, নখ বড় হয়ে যাবে, তারাও মনকষ্টে রয়েছে। তাদের কষ্ট কেউ ভাবছে না। যারা সেলফি তুলত, তাদেরই বা কী হবে? তাদের কথা ভাবা দরকার বলে জানান অভিনেতা। যদিও পুরো বিষয়টাই তিনি ব্যাঙ্গাত্মক সুরে বলেছেন। কিন্তু গোটা ভিডিওতে অভিনেতা যেভাবে কেঁদেছেন, তাতে বোঝার কোনও উপায় নেই। 

 

আরও পড়ুন-করোনাভাইরাস মোকাবিলায় এবার কি হাতিয়ার হবে ড্রোন, সেই পথেই লক্ষ্মৌর বিজ্ঞানী...

আরও পড়ুন-করোনাভাইরাস LIVE, দেশে করোনাকে জয় করলেন ৮২ বছরের বৃদ্ধ, জাপানে জারি হল জরুরী অবস্থা...

আরও পড়ুন-করোনার জের, ভুয়ো খবর রুখতে চালু হল হোয়াটসঅ্যাপের নতুন নিয়ম...